২১শে নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ১০:০৮

কক্সবাজারে সমুদ্রকন্ঠের সম্পাদক পলাশের বিরুদ্ধে এক সপ্তাহে তিন মামলা

 

শাহজাহান চৌধুরী শাহীন,কক্সবাজার প্রতিনিধি : কক্সবাজারের দৈনিক সমুদ্রকন্ঠ পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশ মইনুল হাসান পলাশকে প্রধান আসামী করে পৃথকভাবে এক সপ্তাহে ৩টি মামলা দায়ের করা হয়েছে আদালতে। তিন মামলায় মানহানির অভিযোগ তুলা হয়েছে পৃথকভাবে ৫ কোটি টাকা।

এদিকে মামলা তিনটিই আদালত আমলে নেয়। এরমধ্যে দুইটি মামলা তদন্তপূর্বক প্রতিবেদন দায়ের করার জন্য পুলিশ ব্যুরো ইনভেষ্টিগেশনকে (পিবিআই) নির্দেশ প্রদান করেছেন এবং অপর একটি মামলায় আসামীদেরকে সরাসরি সমন জারি করেছে আদালত।

প্রথম মামলার বাদী কক্সবাজার শহরের বায়তুশ শরফ হাসপাতালের কর্মকর্তা মুক্তিযোদ্ধা কামাল হোসেন। তিনি অভিযোগ করেছেন, কক্সবাজার উত্তরণ গৃহায়ন সমবায় সমিতির বিরুদ্ধে ভুঁয়া সংবাদ প্রকাশ ও প্রচারের কারনে ৫টি পত্রিকা ১০ কোটি টাকার মানহানি করেছেন। যে কারনে উক্ত অভিযোগে পাঁচ পত্রিকার বিরুদ্ধে ১০ কোটি টাকার মানহানি মামলা করা হয়।

দ্বিতীয় মামলাটি দায়ের করেছেন ভারতের ‘কলকতা টিভি’র ও দৈনিক সংবাদ প্রতিদিন এর কক্সবাজার প্রতিনিধি সাংবাদিক শাহজাহান চৌধুরী শাহীন। তিনি মামলাটি দায়ের করেন ৩ এপ্রিল। তিনি অভিযোগ করেছেন, তাকে নিয়ে সমুদ্রকন্ঠ পত্রিকায় চরম মানহানিকর সংবাদ প্রকাশ করেছেন। যে কারনে সাংবাদিক শাহিন সমুদ্রকন্ঠের প্রকাশক ও সম্পাদকসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে ১ কোটি টাকার মানহানি মামলা দায়ের করেন।

সর্বশেষ ৩য় মামলাটি করেছেন একই পত্রিকায় নিজস্ব প্রতিবেদক হিসেবে কর্মরত সাংবাদিক জাহেদ হাসান। বেতন ভাতা চাওয়ায় ক্ষিপ্ত হয়ে মানহানি সংবাদ প্রচার করার অভিযোগে দুই কোটি টাকার মানহানির অভিযোগ তুলে ৫ এপ্রিল কক্সবাজার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালত নং-৪ এ মামলাটি দায়ের করা হয়।

এই মামলাটিও আদালত আমলে নিয়ে তদন্তপূর্বক তদন্ত প্রতিবেদন দেয়ার জন্য কক্সবাজার পিবিআইকে নির্দেশ প্রদান করেছেন। চলতি সপ্তাহে ওই পত্রিকার বিরুদ্ধে মানহানির মামলার সংখ্যা দাঁড়ালো তিনটিতে।

মামলার আর্জিতে বাদি জাহেদ হাসান উল্লেখ করেন, জাহেদ হাসান কক্সবাজারের দীর্ঘদিন ধরে সাংবাদিকতা পেশায় জড়িত। বর্তমানে দৈনিক সমুদ্র কন্ঠ পত্রিকায় নিজস্ব প্রতিবেদক হিসেবে কর্মরত আছেন এবং এ পত্রিকার সম্পাদকের কাছ থেকে বেতন ভাতা পাওনা আছে। গত ২৫ মার্চ ওই পত্রিকা সম্পাদক মঈনুল হাসান পলাশের কাছে বেতন ভাতা চাইলে তিনি রেগে যান এবং গালমন্দ করেন।

এঘটনার জের ধরে সম্পাদক ও প্রকাশ মইনুল হাসান পলাশ ঈর্ষান্বিত হয়ে ৩০ মার্চ দৈনিক সমুদ্রকন্ঠ পত্রিকায় বক্স আকারে ছবিযুক্ত ও গোলাকৃতি সম্বলিত সাংবাদিক জাহেদ হাসানের বিরুদ্ধে একজন চাঁদাবাজ হিসেবে উল্লেখ করে মানহানির সংবাদ প্রচার করে।

ওই পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক একপেশে সংবাদ প্রকাশ ও প্রচার করে সংশ্লিষ্ট পত্রিকার সাংবাদিক জাহেদেও ২ কোটি টাকার মানহানি করা হয়েছে বলে আর্জিতে উল্লেখ করা হয়। এবং ওই সংবাদে কক্সবাজারের একজন সিনিয়র সাংবাদিক শাহজাহান চৌধুরী শাহীনকেও চাঁদাবাজ হিসেবে উল্লেখ করে চরম মানহানি করা হয়।

এদিকে, একের পর সমুদ্রকন্ঠের সম্পাদক ও প্রকাশক মইনুল হাসান পলাশের বিরুদ্ধে মামলা হওয়ায় পুরো শহর জুড়ে সমালোচনার ঝড় ওঠছে। তবে সর্ব শেষ সাংবাদিক শাহীন বাদী হয়ে মামলা ও নিজের পত্রিকার সাংবাদিক জাহেদ বাদী হয়ে মামলা করায় সম্পাদক ও প্রকাশকের গ্রহনযোগ্যতা নিয়ে নানা প্রশ্ন ওঠছে।

 

 

 

 

 

কিউএনবি/সাজু/৬ই এপ্রিল, ২০১৮ ইং/সন্ধ্যা ৬:৫০