২১শে নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | দুপুর ২:৪৮

যুক্তরাষ্ট্রের গাড়িসহ ১০৬টি পণ্যের ওপর চীনা শুল্ক!

 

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : চীন ১০৬টি মার্কিন পণ্যের ওপর ২৫ শতাংশ শুল্ক আরোপ করতে যাচ্ছে। এর মধ্যে গাড়ি, সয়াবিন ও অরেঞ্জ জুস রয়েছে। চীনের এক হাজার ৩০০ পণ্যের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের ২৫ শতাংশ শুল্ক আরোপের তালিকা প্রকাশের প্রতিশোধমূলক পদক্ষেপ হিসেবে পেইচিং এ ঘোষণা দিল।

হোয়াইট হাউস শুল্ক আরোপের পক্ষে যুক্ত তুলে ধরে বলেছিল, মেধাস্বত্ব অধিকারের চীনের অন্যায্য চর্চার জবাব দিতেই এই আমদানি শুল্ক প্রস্তাব করা হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের তালিকায় চিকিৎসাসামগ্রী, টেলিভিশন ও মোটরসাইকেল রয়েছে।

এর জবাবে চীনের অর্থমন্ত্রী জানান, তাঁর দেশ যেসব পণ্যের ওপর প্রতিশোধমূলক শুল্ক আরোপ করতে যাচ্ছে এর মধ্যে রাসায়নিক, কয়েক ধরনের এয়ারক্রাফট ও কৃষিপণ্য রয়েছে। চীনা অর্থ মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে জানানো হয়, যুক্তরাষ্ট্রের আরো যেসব পণ্যের ওপর অতিরিক্ত শুল্ক করা হতে পারে, সেগুলো হচ্ছে হুইস্কি, সিগারেট, টোব্যাকো, গরুর মাংস, লুব্রিকেন্ট, প্রোপেন ও অন্য প্লাস্টিকসামগ্রী। এ ছাড়া অরেঞ্জ জুস, নির্দিষ্ট প্রকার সরঘুম (পশুখাদ্য ও অ্যালকোহল পানীয় উৎপাদনে ব্যবহৃত কৃষিপণ্য), তুলা, কয়েক ধরনের গম এবং গাড়ির মধ্যে ট্রাক, এসইউভি (ক্রীড়া যান), নির্দিষ্ট ধরনের ইলেকট্রনিক যান ইত্যাদি।

এর আগে যুক্তরাষ্ট্রের আরোপ করা চীনা পণ্যের তালিকা প্রকাশের প্রতিক্রিয়ায় পেইচিং ‘তীব্র নিন্দা ও দৃঢ় প্রতিবাদ জানায়। ওয়াশিংটনে চীনা রাষ্ট্রদূত এক বিবৃতিতে জানায়, ‘এই ধরনের একতরফা ও সংরক্ষণবাদী পদক্ষেপের মাধ্যমে মৌলিক নীতি এবং ডাব্লিউটিওর (বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থা) মূল্যবোধকে মারাত্মকভাবে লঙ্ঘন করা হয়েছে।’ তাতে বলা হয়, চীন শুধু ‘স্বাভাবিক প্রতিশোধ’ গ্রহণ করবে।  যুক্তরাষ্ট্রের পদক্ষেপের বিরুদ্ধে ডাব্লিউটিওর হস্তক্ষেপ চাওয়া হবে বলেও চীন জানায়।

অর্থনীতিবিদরা আগে থেকেই ট্রাম্প প্রশাসনকে সতর্ক করে আসছিলেন যে যুক্তরাষ্ট্র শুল্ক শাস্তির পথে অগ্রসর হলে চীনও প্রতিশোধমূলক পদক্ষেপ নেবে। এর ফলে যুক্তরাষ্ট্রের ভোক্তাদের অতিরিক্ত দামে পণ্য কিনতে হবে। মার্কিন বাণিজ্য প্রতিনিধি দপ্তরও জানিয়েছিল, এই পদক্ষেপের মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতির জন্য ক্ষতিকর হবে।

বুধবার ওয়াশিংটনে চীনা দূতাবাস প্রতিশোধমূলক শুল্ক আরোপের কথা ঘোষণা করে। এ সময় বলা হয়, পেইচিং আশা করে ভুল পথে যাওয়া থেকে বিরত থাকতে যুক্তরাষ্ট্র দীর্ঘমেয়াদি একটি চিত্র দেখে মনে এঁকে নিতে পারবে। এর মধ্য দিয়ে সমঝোতা প্রত্যাশাও কথাও জানাল চীন। এ ছাড়া চুক্তরাষ্ট্রের বণিক সমিতিসহ বাণিজ্যিক সংগঠনগুলোও চীনের সঙ্গে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে সমস্যা সমাধানের আহ্বান জানিয়েছে। সূত্র : বিবিসি।

কিউএনবি/রেশমা/৫ই এপ্রিল, ২০১৮ ইং/সকাল ১০:০৪