১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | দুপুর ১:১৩

বাগেরহাটে কৃষকলীগ নেতার চিংড়ি খামার দখল, বাড়িতে অগ্নিসংযোগ

 

বাগেরহাট প্রতিনিধি : বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে এক কৃষকলীগ নেতার চিংড়ি মাছের ঘের (খামার) দখল করে নিয়েছে স্থানীয় এক ইউপি চেয়ারম্যান।

এসময় তারা ওই কৃষকলীগ নেতাকে অপহরণ করে নিয়ে যায় এবং তার বসতবাড়ির রান্নাঘরে অগ্নিসংযোগ করে। শনিবার বিকেলে মোরেলগঞ্জ উপজেলার জিউধরা ইউনিয়ন কৃষকলীগের সভাপতি মো. বাচ্চু খানের সমাদ্দারখালি গ্রামের বাড়িতে এই ঘটনা ঘটে।

তবে জিউধরা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও ইউপি চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম বাদশা তার বিরুদ্ধে করা অভিযোগ অস্বীকার করেছে। কৃষকলীগ নেতার ভাতিজা কে এম মহিউদ্দিন রিপন বলেন, শনিবার দুপুর দেড়টার দিকে জিউধরা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও ইউপি চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম বাদশার ছেলে সুমন শাহ’র নেতৃত্বে ১০/১২ টি মোটরসাইকেল যোগে ২০-২২ জন সশস্ত্র সন্ত্রাসী আমার চাচা বাচ্চু খানের মাছের ঘেরে এসে ঘেরের গৈঘর ভাংচুর করে বাড়িতে আসে।

এসময় আমার চাচা বাচ্চু খানকে দুপুরের খাবার খাওয়া অবস্থায় চেয়ারম্যানের ছেলের লোকজন তাকে অপহরণ করে নিয়ে যায়। দীর্ঘদিন ধরে চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম বাদশা আমার চাচার ওই ঘেরটি দখলের চেষ্টা করে। এনিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। সেই বিরোধের জেরে তারা আমার চাচার ৯৭ বিঘার মাছের ঘেরটি দখল করে নিয়েছে বলে অভিযোগ তার।

জিউধরা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও ইউপি চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম বাদশা তার বিরুদ্ধে করা অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, কৃষক লীগ নেতা বাচ্চু খানের সাথে আমার রাজনৈতিক বিরোধ রয়েছে চিংড়ি মাছের ঘের নিয়ে বিরোধের ঘটনায় বসতবাড়িতে অগ্নিসংযোগ ও ভাংচুরের সত্যতা স্বীকার মোরেলগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) রফিকুল ইসলাম বলেন, চিংড়ি মাছের ঘেরের গৈঘর ভাংচুর ও বসতবাড়ির রান্নাঘরের কিছু অংশ আগুনে পুড়ে গেছে।

তবে ঘের দখলকারী কাউকে পাওয়া যায়নি। কৃষক লীগ নেতা বাচ্চু খানকে যারা অপহরণ করেছিল তারা তাকে ছেড়ে দিয়ে পালিয়ে গেছে। এঘটনায় জড়িতদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

 

 

 

 

 

কিউএনবি/সাজু/৩১শে মার্চ, ২০১৮ ইং/সন্ধ্যা ৭:৩৯