১৮ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ৪ঠা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | বিকাল ৪:২০

ইউপিডিএফ’কে নিষিদ্ধের দাবিতে বিক্ষোভে উত্তাল খাগড়াছড়ি; অবরোধের হুমকি।

 

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি : জেলার রামগড় উপজেলার পাতাছড়া ইউনিয়ন বিএনপির সহ-সভাপতি ও মারমা সংগঠন ঐক্য পরিষদের খাগড়াছড়ি জেলা শাখার আইন বিষয়ক সম্পাদক চাইথুই মারমার মুক্তির দাবিতে শহরে বিক্ষোভ করেছে বিভিন্ন সংগঠন। হাজারও প্রতিবাদী পাহাড়ি-বাঙ্গালীর বিক্ষোভে মুহূর্ত্যইে উত্তাল হয়ে উঠে খাগড়াছড়ি।

শুক্রবার (৯মার্চ) বিক্ষোভ সমাবেশ থেকে অপহৃত চাইথুই মারমার মুক্তিসহ পাহাড়ে খনি, গুম, চাঁদাবাজি ও অপহরণে ইউপিডিএফ (প্রসীত) গ্রুপকে দায়ী করে সংগঠনটিকে নিষিদ্ধ ঘোষণার দাবীতে আগামী সোমবার খাগড়াছড়িতে সকাল-সন্ধ্যা সড়ক অবরোধের ঘোষণা দেন বিক্ষোভকারীরা।
শুক্রবার বেলা ১১টার দিকে অপহৃত চাইথুই মারমার মুক্তির দাবীতে খাগড়াছড়ি পৌর শহরে বিক্ষোভ মিছিল বের করে বিক্ষোভকারীরা। শহরের গুরুত্তপূর্ণ শহর প্রদক্ষিণ শেষে শাপলা চত্বরের মুক্তমঞ্চে বিক্ষোভ সমাবেশে মিলিত হয়। সমাবেশে অপহৃত চাইথুই মারমার স্ত্রী হ্লাহরী মারমা বলেন, গত ৪ মার্চ ভোর রাতে ইউপিডিএফ’র ৫/৬ জন অস্ত্রধারী পাহাড়ি সন্ত্রাসী তার স্বামীকে তুলে নিয়ে যায়। অপহরণকারীদের মধ্যে তিনি একজনকে চিনেছেন।
তার নাম মংসাথুই মারমা। তিনি তার স্বামীকে অক্ষত অবস্থায় উদ্ধারে প্রশাসনের কাছে জোর দাবি জানান। তিনি বলেন, বহু আগ থেকে ইউপিডিএফ’র সন্ত্রাসীরা তার স্বামীকে হত্যার হুমকি দিয়ে আসছে। অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা ইউপিপিএফ (প্রসীত গ্রুপের)।
সমাবেশে মারমা সংগঠন ঐক্য পরিষদের খাগড়াছড়ি জেলা সভাপতি কংচাইরী মারমা ইউপিডিএফ (প্রসীত) গ্রুপের বিরুদ্ধে চাইথুই মারমাকে অপহরণসহ খুন, গুম, অপহরণ ও মুক্তিপন আদায়সহ বিভিন্ন সন্ত্রাসী কর্মকা-ের প্রতিবাদে এবং অপহৃতকে উদ্ধারের দাবিতে ৪৮ ঘন্টার আল্টিমেটাম দিয়ে আগামী সোমবার খাগড়াছড়িতে সকাল-সন্ধ্যা সড়ক অবরোধ কর্মসূচী ঘোষণা করেন।
সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন, খাগড়াছড়ি জেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মনীন্দ্র লাল ত্রিপুরা, পার্বত্য চট্টগ্রাম সম-অধিকার আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক মোশাররফ হোসেন, পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদের সভাপতি লোকমান হোসেন, সাধারণ সম্পাদক আসাদ উল্লাহ, পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ (এমএম) গ্রুপের নেতা রাজ্যমনি চাকমা, ইউপিডিএফ গণতান্ত্রিক নেতা রিপন চাকমা ও মারমা নেতা উত্তম মারমা। সমাবেশে বক্তারা ইউপিডিএফ প্রসীত গ্রুপের সন্ত্রাসী কর্মকা- বন্ধ না হলে আগামীতে ঘরে ঘরে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে জনগণকে প্রস্তত থাকার আহ্বান জানিয়ে বলেন, ইউপিডিএফকে প্রতিহত করতে হবে। এবার কোন এলাকায় সন্ত্রাসী কর্মকা- করলে গণধালাই দেওয়া হবে।
বিক্ষোভে ইউপিডিএফ নেতা প্রসীত বিরোধী হাজারও প্রতিবাদী মানুষের শ্লোগানে পুরো শহর প্রকম্পিত হয়। কর্মসূচিতে মারমা, ত্রিপুরা, চাকমা ও বাঙালি সম্প্রদায়ের নেতৃবৃন্দ ছাড়াও অংশ নেন জেলা বিএনপির শীর্ষ পর্যায়ের নেতারা। বিক্ষোভ সমাবেশ থেকে জেলার রামগড় উপজেলার পাতাছড়া ইউনিয়ন বিএনপির সহ-সভাপতি ও মারমা সংগঠন ঐক্য পরিষদের খাগড়াছড়ি জেলা শাখার আইন বিষয়ক সম্পাদক চাইথুই মারমাকে অপহরনসহ পাহাড়ে চাঁদাবাজি, খুন, গুম ও অপহরণের ইউপিডিএফ (প্রসীত) গ্রুপকে দায়ী করে সংগঠনটিকে নিষিদ্ধ ঘোষণার দাবিতে আগামী সোমবার খাগড়াছড়িতে সকাল-সন্ধ্যা সড়ক অবরোধ আহ্বান করা হয়।
মারমা সম্প্রদায়ের পাশাপাশি চাকমা, ত্রিপুরা, বিভিন্ন বাঙালি সংগঠন ও বিএনপির নেতারাও কর্মসূচিতে অংশ নিয়ে চাইথুই মারমার অপহরণের ঘটনায় ধিক্কার জানায়। তারা এ অপহরণের জন্য ইউপিডিএফ(প্রসীত) গ্রুপকে দায়ী করে সংগঠনটিকে নিষিদ্ধ করার দাবি জানান। এদিকে কর্মসূচির সাথে সংহতি প্রকাশ করেছেন খাগড়াছড়ি জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি প্রবীন চন্দ্র চাকমা, সাংগঠনিক সম্পাদক এমএন আবছার, ক্ষনি রঞ্জন ত্রিপুরা।
ইউপিডিএফ(প্রসীত) গ্রুপের বিরুদ্ধে গত ৬ মার্চ জেলার মানিকছড়ি মোবাইল কোম্পানি রবি-এয়ারটেলের চার টেকনিশিয়ানকে অপহরণের অভিযোগ রয়েছে।
তবে এ সব অভিযোগ প্রত্যাখান করেছেন, ইউপিডিএফ (প্রসীত) গ্রুপের গণমাধ্যম শাখার মূখপাত্র নিরণ চাকমা। তিনি মুঠোফোনে বলেন, কোন অপহরণ ঘটনার সাথে ইউপিডিএফ জড়িত নয়। এ সব অভিযোগ ইউপিডিএফ’র বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র।
কিউএনবি/রেশমা/১১ই মার্চ, ২০১৮ ইং/সকাল ১০:২৭