২২শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ৭ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | বিকাল ৩:৪৬

নারায়ণগঞ্জে যাত্রীবাহী বাস ও লরীর সংঘর্ষে নিহত ৯, আহত ২৫

 

হাসান মজুমদার বাবলু,নারায়ণগঞ্জ : নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ের ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের টিপরদী-রতনদী এলাকায় যাত্রীবাহী বাস ও লরীর মূখোমুখি সংঘর্ষে শিশু ও নারী-পুরুষসহ কমপক্ষে ৯ জন নিহত হয়েছে।

আহত হয়েছে আরও কমপক্ষে ২৫ জন বাস যাত্রী। আহতদের মধ্যে ৭ জনের অবস্থা আশংকাজনক। নিহত ৮ জনের মধ্যে জিয়াসমিন (৩০) নামের এক গার্মেন্টস কর্মীর পরিচয় পাওয়া গেলেও বাকীদের নাম পরিচয় এখন পর্যন্ত জানা যায়নি। গতকাল সোমবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। সড়ক দূর্ঘটনায় আহত বাস যাত্রীদের উদ্ধারের পর ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল ও সোনারগাঁ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্্রসহ বিভিন্ন ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে।

খবর পেয়ে কাঁচপুর হাইওয়ে থানা পুলিশ ও সোনারগাঁ থানা পুলিশের পৃথক দুটিদল ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে নিহতদের লাশ উদ্ধার করে। এদিকে সড়ক দূর্ঘটনার পর ঢাকা চট্টগ্রাম মহাসড়কে টিপরদী এলাকা থেকে দূ‘প্রান্তের প্রায় ১০ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়। যানজটের কবলে পড়ে এসময় শতশত পরিবহন যাত্রী চরম দূর্ভোগ পোহান। প্রায় ২ ঘন্টা পর মহাসড়ক থেকে দূর্ঘটনা কবলিত বাসটি সরিয়ে নিলে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়ে উঠে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, গতকাল সোমবার দুপুর দেড় টার দিকে ঢাকা থেকে চট্টগ্রামগামী যাত্রীবাসী বাস এমডি ইয়াসিন (ঢাকা মেট্রো ভ-১১-০৮২৬) ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের টিপরদী-রতনদী ক্যান্টাকী গার্মেন্টের সামনে দিয়ে অতিক্রম করছিল। এসময় ওই যাত্রীবাহী বাসটি নিয়ন্ত্রন হারিয়ে মহাসড়কের পাশে থামানো একটি লরিকে (ঢাকা-মেট্রো-ঢ-৮১-০২৭৯) পিছন দিক দিয়ে এসে সজোড়ে ধাক্কা দেয়।

এসময় বাসের এক তৃতীয়াংশ ভেঙ্গে লরির ভেতরে প্রবেশ করে সেটি দুমড়ে মুচড়ে যায়। এসময় যাত্রীবাহী ওই বাসের ভেতরে থাকা ২ শিশু, ২ নারী ও ৫ জন পুরুষসহ কমপক্ষে ৯ জন নিহত হয়। আহত হয় আরও কমপক্ষে ২৫ জন যাত্রী। আহতরা হলেন- আলমগীর, নজরুল, মনির, ভাগ্যবতি, অমল কান্তি কর্মকারসহ ২৫ জন। আহতদের মধ্যে ৭ জনের অবস্থা আশংকাজনক। নিহতদের মধ্যে জিয়াসমিন (৩০) নামের এক গার্মেন্টসকর্মী ছাড়া আর কারও পরিচয় পাওয়া যায়নি।

সোনারগাঁ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্র চিকিৎসাধীন আহত বাস যাত্রী আলমগীর হোসেন জানান, কাঁচপুর থেকে কুমিল্লা যাওয়া উদ্দেশ্যে তিনি এমডি ইয়াসিন নামের ওই যাত্রীবাহী বাসটিতে উঠেছিলেন।

পথিমধ্যে মহাসড়কের সোনাখালী এলাকায় একটি রিক্সাকে ধাক্কা দেয় বাসটি। পরে বাসের চালক নিজেকে বাঁচাতে দ্রুতগতিতে বাস চালানোর সময় উপজেলার রতনদী এলাকায় ধীরে চলমান একটি লরীকে নিয়ন্ত্রন হারিয়ে ধাক্কা মারে। এসময় যাত্রীবাহী বাসটি লরির অনেকটা ভেতরে ঢুকে পড়ে।

এসময় বাসটি দুমড়ে মুচড়ে যায়।দুর্ঘটনায় আহত প্রত্যক্ষদর্শী আব্দুল ওয়াহাব জানান, দূর্ঘটনা কবলিত বাসটিতে প্রায় ৫০ জন যাত্রী ছিল। দূর্ঘটনার সময় ঘটনাস্থলে বিকট শব্দ হয়। এসময় বাসের ভেতরে থাকা যাত্রীরা চিৎকার দিয়ে উঠে। কাঁচপুর হাইওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কাইয়ুম আলী সিকদার জানান, দূর্ঘটনার খবর পেয়ে তিনি তাৎক্ষনিক ঘটনাস্থলে ছুটে যান।

দূর্ঘটনার পর ঘটনাস্থলেই ৪ জন ও হাসপাতালে নেওয়ার পথে আরও ৫ জন নিহত হয়। নিহতদের মধ্যে ২ জন শিশু, ২ জন নারী ও ৫ জন পুরুষ। এসময় আহত হয় আরও কমপক্ষে ২৫ জন। আহতদের মধ্যে ৭ জনের অবস্থা আশংকাজনক। তিনি আরও জানান, নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে।

এদিকে সড়ক দূর্ঘটনার খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শনে আসেন ঢাকা রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি (অপরাধ) আবুল কালাম সিদ্দিক, হাইওয়ে রেঞ্জের (ডিআইজি) আতিকুল ইসলাম বিপিএম, গাজীপুর রিজিয়নের পুলিশ সুপার শফিকুল ইসলাম পিপিএম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

 

 

 

 

কিউএনবি/সাজু/২৬শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং/রাত ৮:৩৭