১৪ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং | ৩০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সন্ধ্যা ৭:২১

প্রথম বৃষ্টিতে স্বস্তি চা বাগানে

 

ডেস্ক নিউজ : বসন্তের প্রথম বৃষ্টিতে স্বস্তি নেমে এসেছে মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলের বালিশিরা ভ্যালির চা বাগান এলাকায়। সোমবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) ভোররাত থেকে সকাল ৬টা পর্যন্ত মৌলভীবাজার জেলায় ১৬ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। বৃষ্টির কারণে আগামী কয়েকদিনের মধ্যেই চা গাছে নতুন কুঁড়ি দেখা যাবে বলে আশা করছেন চা উৎপাদনের সঙ্গে জড়িত সংশ্লিষ্টরা।

চা গবেষণা ইনস্টিটিউটের বিজ্ঞানীরা জানান, প্রতি বছর চা গাছগুলোর মাথা নির্দিষ্ট মাপ অনুসারে ছেঁটে ফেলা হয়। তারপর চলে অপেক্ষার পালা। বৃষ্টির ফলে রোপণ করা নতুন চারাগুলো রক্ষা পাবে। এসব গাছে তিন-চার দিনের মধ্যে কুঁড়ি দেখা দেবে।

ঢাকা আবহাওয়া অফিসের আবহাওয়াবিদ আব্দুর রহমান খান মুঠোফোনে বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘সোমবার সকাল ৬টা পর্যন্ত শ্রীমঙ্গলে ১৬ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে।’

শ্রীমঙ্গলের নাহার চা বাগানের ব্যবস্থাপক পীযুষ কান্তি ভট্টাচার্য  বলেন, ‘চায়ের জন্য বছরে ১৫০-২৫০ মিলিমিটার বৃষ্টিপাতের প্রয়োজন হয়। বৃষ্টি হওয়ায় কিছুটা স্বস্তিতে আছি আমরা। চা বাগানে ইয়াং টির (নবীন চা) জন্য  ইরিগেশনের (সেচ) ব্যবস্থা করি। এখন আমাদের আর সেচ ব্যবস্থা না করলেও হবে। চা গাছে নতুন কুঁড়ি গজাবে আর পাতা আগে তোলা সম্ভব হবে।’

জেসম ফিনলে টি কোম্পানির সিলেট বিভাগের চা-এর উপ মহাব্যবস্থাপক (ডিজিএম) গোলাম মোহাম্মদ শিবলি বলেন, ‘যতটুকু বৃষ্টিপাত হয়েছে তাতে আমরা স্বস্তি বোধ করছি। কিছুদিন আগে এই চা গাছের মাথা ছাঁটাই করা হয়েছিল। রুক্ষভাব দেখা গিয়েছিল চা বাগানে। কিন্তু হঠাৎ বৃষ্টির কারণে  আবারও জেগে উঠেছে  চা গাছগুলো।’

কিউএনবি/রেশমা/২৬শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং/ দুপুর ১২:০৭