১৮ই জুন, ২০১৮ ইং | ৪ঠা আষাঢ়, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ৯:৩৭

কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে প্রশ্ন ফাঁসের উদ্দেশ্যে মোবাইল রাখায় শিক্ষক গ্রেফতার

 

 

কুষ্টিয়া প্রতিবেদক : কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে স্মার্ট মোবাইল ফোন নিয়ে প্রশ্ন পত্র ফাঁসের উদ্দেশ্যে পরীক্ষা কেন্দ্রে পরীক্ষার পূর্বে অবৈধ ভাবে প্রবেশ করার অপরাধে শহীদুল ইসলাম ওরফে বানেজ নামে এক প্রধান শিক্ষককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার পরীক্ষার কিছুক্ষন আগে সকাল পৌনে ১০ টার দিকে উপজেলার আল্লারদর্গা নাসির উদ্দিন বিশ্বাস উচ্চ মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ে এস এস সি পরীক্ষা কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে।


জানাগেছে, ভেড়ামার উপজেলার পাটুয়াকান্দি নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শহীদুল ইসলাম ওরফে বানেজ ঘটনার দিন সকাল পৌনে ১০ টার সময় দৌলতপুর উপজেলার আল্লারদর্গা নাসির উদ্দিন বিশ্বাস উচ্চ মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ে এসএসসি পরীক্ষা কেন্দ্রে পরীক্ষার ডিউটি না থাকার পরও অবৈধ ভাবে স্মাট মোবাইল ফোন সঙ্গে নিয়ে পরীক্ষা কেন্দ্রের ভেতরে প্রবেশ করে পরীক্ষার প্রশ্ন পত্র ফাঁশের চেষ্টা চালায়।

এ সময় যশোর শিক্ষা বোর্ডের পরিদর্শক উপসহকারী প্রকৌশলী মোঃ কামাল হোসেন তার গতি বিধি লক্ষ্য করে তার কাছে থাকা মোবাইলটি জব্দ করে এবং তখনই ঐ মোবাইলে পর পর দু’টি ফোন আসে, তাতে অপর প্রান্ত থেকে বলা হয়েছে “এসএসসি পরীক্ষার প্রশ্ন পাওয়া গেছে” ? বোর্ড পরিদর্শকের বিষয় টি সন্দেহ হলে তাকে আটক করা হয় এবং মোবাইলটি জব্দ করা হয়। এ সময় পুলিশ রাষ্ট্রেীয় অপরাধে শিক্ষক শহীদুল ইসলাম কে গ্রেফতার করে।

এব্যাপারে দৌলতপুর থানার ওসি শাহ দারা খাঁন পিপিএম জানান, পরীক্ষার আইন ভঙ্গ করে, অবৈধ ভাবে মোবাইল নিয়ে কেন্দ্রে প্রবেশের কারণে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে এবং কেন্দ্র সচিব থানায় এজাহার করলে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে, মামলা নং ৩০, তারিখ ২২.০২.১৮।

এলাকাবাসী জানায়, প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলাম একজন অসৎ দূর্নীতিবাজ ব্যাক্তি, তার বিরুদ্ধে প্রশ্ন ফাঁস করে লাখ লাখ টাকা কামাই, বিদ্যালয়ে শিক্ষক নিয়োগের নামে ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা করে সোলাইমান, মিনহাজ্ব, মিনু, সারমিন, মাজদুল, রোকনুজ্জামান, পারভিনা, মহাসিন রেজা সহ ৮/১০ জনের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা উৎকোচ গ্রহণ, অবৈধ সুদের ব্যবসাসহ বিদ্যালয়ের বিভিন্ন খাতের টাকা আত্বসাত করে বিলাস বহুল বাড়ী-গাড়ীর মালিক হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। বিলাস বহুল বাড়ী-গাড়ীর অর্থের উৎস কোথায় তদন্ত করলে থলের বিড়াল বেরিয়ে আসবে, এব্যাপারে এলাকাবাসী দূনীৃতি দমন অধিদপ্তর ও শিক্ষমন্ত্রণালয় সহ যথাযথ কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছে, তার অপকর্মের সুষ্ঠ তদন্ত পূর্বক শাস্তির দাবী জানিয়েছেন।

 

 

কিউএনবি/রামিম/২২.০২.২০১৮ইং /রাত ১১.৫৬