২০শে নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সকাল ১১:৪৫

নড়াইলে লাখো প্রদীপ প্রজ্জ্বলনের মাধ্যমে ভাষা শহীদদের স্মরণ

শরিফুল ইসলাম,নড়াইল প্রতিনিধি ঃ ‘অন্ধকার থেকে মুক্ত করুক একুশের আলো’ এ ¯েøাগানে নড়াইলে ভাষা শহীদদের স্মরণ করা হয়েছে। ২১ ফেব্রæয়ারি ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে নড়াইল সরকারি ভিক্টোরিয়া কলেজ খেলার মাঠে লাখো প্রদীপ প্রজ্জ্বলনের মাধ্যমে ভাষা সৈনিকদের স্মরণ করা হয়। একটি, দু’টি নয় লক্ষ মোমবাতি প্রজ্জ্বলন করে পালন করা হয় অমর একুশে। মুহূর্তেই অন্ধকার ছাপিয়ে মোমের আলোয় আলোকিত হয়ে যায় বিশাল মাঠ। মোমবাতি প্রজ্জলনের মধ্য দিয়ে বর্ণমালা, অল্পনাসহ বাংলাদেশের নানান ঐতিহ্য তুলে ধরা হয়।

 

ভাষা শহীদদের স্মরণে ১৯৯৮ সালে নড়াইলে এই ব্যতিক্রমী আয়োজন শুরু হয়। প্রথমবার ১০ হাজার মোমবাতি জ্বালিয়ে ভাষা শহীদদের স্মরণ করা হলেও প্রতিবছর এর ব্যপ্তি বেড়েছে। এ বছর ৬ একর জায়গাজুড়ে এক লাখ মোমবাতি প্রজ্জ্বলন করা হয়। সেই সাথে ওড়ানো হয়েছিল ফানুস। বিশাল এই আয়োজন দেখতে দুর-দুরান্ত থেকে হাজারো মানুষ নড়াইল সরকারি ভিক্টোরিয়া কলেজ খেলার মাঠে আসেন। বর্ণিল আলোয় আলোকিত হন সবাই।

 

দু’দিন ধরে তিন হাজার স্বেচ্ছাসেবী লাখো মোমবাতি দিয়ে সাজিয়ে তোলেন পুরো মাঠ। আর ২১ ফেব্রæয়ারির রাত সাড়ে ৭টার দিকে মোমবাতিগুলো প্রজ্জ্বলন করে আলোকিত করা হয় নড়াইল ভিক্টোরিয়া কলেজ বিশাল মাঠ। মোমবাতির আলোয় দৃষ্টিনন্দন হয়ে ওঠে চারিদিক। এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক এমদাদুল হক চৌধুরী, পুলিশ সুপার সরদার রকিবুল ইসলাম, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সোহরাব হোসেন বিশ্বাস, নড়াইল পৌর মেয়র জাহাঙ্গীর বিশ্বাস, একুশ উদ্যাপন পর্ষদের আহবায়ক অধ্যাপক মুন্সি হাফিজুর রহমান, সদস্য সচিব নাট্যকার ও অভিনেতা কচি খন্দকার, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট সুবাস চন্দ্র বোস, সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দীন খান নিলু প্রমুখ। উন্মক্ত মঞ্চ থেকে দেশাত্ববোধক সংগীত প্ররিবেশ করেন স্থানীয় শিল্পীরা। প্রদীপ প্রজ্জ্বলনের মধ্য দিয়ে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়নের অঙ্গীকারসহ সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদমুক্ত দেশ গড়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন আয়োজকরা।

কিউএনবি/নীল/১৫ই ফেব্রুয়ারি