১৭ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ৩রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সকাল ৮:৩১

নোয়াখালীতে ইউপি চেয়ারম্যান কর্তৃক সংখ্যালঘুর উপর হামলা, প্রতিবাদে মানববন্ধন

 

মোঃ আবদুল্যাহ রানা,নোয়াখালী প্রতিনিধি : নোয়াখালী কবিরহাট উপজেলার ৫ নং চাপরাশিরহাট ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মহিউদ্দীন টিটু কর্তৃক একই ইউনিয়নের সংখ্যালঘু পরিবারের অর্জুন ভৌমিক ও বিপ্লব ভৌমিককে ইউনিয়ন পরিষদে ডেকে নিয়ে মারধরের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে রবিবার দুপুর ১২ টায় উপজেলা পরিষদের সামনে ঘন্টাব্যাপি মানববন্ধন করেন পুজা উদযাপন কমিটির নেতৃবৃন্দ।

পুজা উদযাপন কমিটির সাধারন সম্পাদক পদেশ মজুুমদার ক্ষোভ প্রকাশ করে জানান, জায়গা-জমিন সংক্রান্ত ঘটনাকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের পক্ষ অবলম্বন করে স্থানীয় চেয়ারম্যান সংখ্যালঘু পরিবারের অর্জুন ভৌমিক ও বিপ্লব ভৌমিককে ইউনিয়ন পরিষদে ডেকে নিয়ে মারধর ও লাঞ্চিত করেন। আমারা এর তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানাই। কোন কারন ছাড়া পক্ষদষ্ট্রা হয়ে আইন হাতে তুলে নেয়া একজন চেয়ারম্যানের নিচক অন্যায়। আমরা পুজা উদযাপন কমিটির পক্ষ থেকে এই ঘটনার তদন্ত ও সুবিচার দাবী করি।

চেয়ারম্যান হলেও তিনি আইনের উর্দ্ধে নন। বিনা অপরাধে ক্ষমতার দাপটে নিরীহ সংখ্যালঘুর উপর হামলা গুরুতর অন্যায়।ভুক্তভোগী অর্জুন ভৌমিক জানান, জায়গা জমি নিয়ে স্থানীয় সুবোধ গং দের সাথে আমাদের মত বিরোধ ছিল। যা স্থানীয় ভূমি অফিসে প্রতিপক্ষের লিখিত অভিযোগের প্রেক্ষিতে সহকারী কমিশনার (ভূমি) এর নির্দেশে তশীলদার সাইফুল ইসলাম সরেজমিনে গিয়ে তদন্ত ও রেকর্ডপত্র পর্যালোচনা করে আমাদের পক্ষে প্রতিবেদন দেন।

প্রতিপক্ষ সুবোধ চন্দ্র দে চেযারম্যান টিটু সাহেবের দ্বারস্থ হলে তিনি গত শুক্রবার সকালে পরিষদের একজন দফাদার পাঠিয়ে আমাকে ইউনিয়ন পরিষদে ডেকে আনেন। আমরা পরিষদে উপস্থিত হলে চেয়ারম্যান সাহেব কাগজপত্র না দেখে খারাপ ভাষায় গালমন্দ করে জন প্রকাশ্যে আমাদের দুই ভাই কে কিল, ঘুষি ও থাপ্পড় মারতে শুরু করেন। আমরা এর বিচারের দাবী জানাই।

এই ঘটনায় স্থানীয় এলাকায় আলোচনা, সমালোচনার ঝড় উঠেছে। ভুক্তভোগীর পরিবার ও উপজেলা পুজা উদযাপন কমিটির নেতৃবৃন্দ চেয়ারম্যান টিটুর বিচার দাবী করেন।

 

 

 

কিউএনবি/রেশমা/৩০শে জানুয়ারি, ২০১৮ ইং/দুপুর ১:৫৫