ব্রেকিং নিউজ
২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ১১ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সন্ধ্যা ৬:৫১

ভান্ডারিয়ায় গাজীপুর দাখিল মাদ্রাসা সুপারের বিরুদ্ধে ব্যাপক দূর্নীতি অনিয়মের অভিযোগ

 

মো: মামুন হোসেন,পিরোজপুর প্রতিনিধি : পিরোজপুরের ভান্ডারিয়া পৌর শহরের গাজীপুর দাখিল মাদ্রাসার সুপার মাওলানা আ.হাই এর বিরুদ্ধে নিয়োগ বানিজ্য ও প্রতিষ্ঠানে র্দীঘদিন ধরে ব্যাপক দূর্ণীতি ও অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, গাজীপুর দাখিল মাদ্রাসার সুপার মাওলানা আব্দুল হাই মাদ্রাসার অফিস সহকারী ও এম.এল.এস.এস (দপ্তরী) দুটি পদে নিয়োগে প্রতিষ্ঠানের উন্নায়নের কথা বলে ১০ লাখ টাকা অত্মসাৎ, মাদ্রাসার শিক্ষক মোসলেম উদ্দিন ১৯৯৬ সালের মৃত্যুর পরে তার বেতন অবৈধ ভাবে উত্তলন করে নগত টাকা আত্মসাৎ,সরকারি বিধি অমান্য করে এবতেদায়ী বিভাগ থেকে দাখিল বিভাগে নিয়োগের পরিবর্তে কুটকৌশলে শুধু রেজুলেশনের মাধ্যমে মোটা অংকের টাকা নিয়ে প্রতিষ্ঠানে ৩ শিক্ষককে নিয়োগ দেখিয়ে পদোউন্নতির বিল পাইয়ে দেয়াসহ প্রতিষ্ঠানের আনুমানিক ৫ লাখ টাকা মুল্যের শতাধিক মেহেগুনি ও রেন্ট্রি গাছ কেটে অবৈধ ভাবে বিক্রির মাধ্যমে অত্মসাৎ করেন এসব ঘটনায় স্থানীয় বাসিন্দা ভুক্তভোগি মাকসুদা বেগম ও স্থানীয় অর্ধশত এলাকাবাসী ভা-ারিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরসহ বিভিন্ন দপ্তরে প্রতিষ্ঠানের সুপার আব্দুল হাই ও শারীরিক শিক্ষক আকবর আলীর দূর্ণীতি ও অনিয়মে বিরুদ্ধে একটি লিখিত অভিযোগ করেন।

অভিযোগ পেয়ে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো: জাহাঙ্গীর হোসেন গত ২৪ ডিসেম্বর সরেজমিনে মাদ্রাসার অফিস কক্ষে তদন্ত করেন। ভুক্তভোগি মো: বজলুর রহমান জানান, মাদ্রাসা সুপার তার স্ত্রীকে মাদ্রাসার অফিস সহকারী পদে চাকুরী দেয়ার জন্য ৫ লাখ টাকা চুক্তি করে এবং ২ লাখ ৫০ হাজার এবং তার জমির গাছ বিক্রি করে ১ লাখ টাকা নিয়ে অত্মসাৎ করেও চাকুরী দেয়নি।

অত্র মাদ্রাসার সাবেক ছাত্র, ভুক্তভোগি জাহিদুল ইসলাম কবির জানান, এই মাদ্রাসায় দপ্তরী পদে চাকুরীর আশায় ১৭ বছর বিনা বেতনে কাজ করার পরও মাদ্রাসা সুপার ও ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি দপ্তরী পদের জন্য ৫ লাখ টাকা দাবি করেন। পরে তাদের নির্দেশে মাদ্রাসার শারীরিক শিক্ষক আকবার আলীর কাছে ২ লাখ ৫০ হাজার টাকা দিয়েও তার চাকুরী হয়নি, পুরো টাকাই অত্মাসাৎ করে ওই চক্র। ফলে তাকে পথে বসতে হয়েছে।

অপর ভুক্তভোগি মাকসুদা বেগম জানান, অফিস সহকারী পদে গত ১৭ অক্টোবর নিয়োগ পরীক্ষার ব্যাপারে তাকে কোন অবগতি করা হয়নি এবং অত্র মাদ্রাসায় পরীক্ষার স্থান ধার্য্য থাকলেও মাদ্রাসা সুপার বে-আইনি ভাবে ভা-ারিয়া উপজেলায় বসে কৌশলে পরীক্ষা নেয় এবং তাদের পছন্দের লোক নিয়োগ দেয়। এতে অনেক প্রার্থীই পরীক্ষায় অংশগ্রহন করতে পারেনি।

মাদ্রাসার বর্তমান ম্যানেজিং কমিটির সদস্য মাইনুদ্দীন তালুকদার জানান, ক্ষমতার ভলে মাদ্রাসার পুরাতন গাছ কেটে ম্যানিজিং কমিটির সভাপতি ও মাদ্রাসা সুপার তাদের বাড়ির খাট-আলনা ও আলমিরা বানিয়েছেন এবং বাকী গাছ অবৈধ ভাবে বিক্রি করে কিন্তু প্রতিষ্ঠানে কোন টাকা জমা না দিয়ে আত্মসাৎ করেছেন বহু আগেই। অভিযুক্ত গাজীপুর দাখিল মাদ্রাসা সুপার মাওলানা আব্দুল হাই ও শারীরিক শিক্ষক আকবর আলী বলেন,তাদের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ সর্ম্পূণ মিথ্যা। তারা কোন দূর্ণীতি করেননি বলে দাবি করেন।

এ বিষয়ে ভা-ারিয়া উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মর্কতা মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন জানান,অভিযোগ পেয়ে ওই মাদ্রাসায় গিয়ে তদন্ত করেছে। তিনি বলেন, অভিযোগের কিছু সত্যতা মিলেছে।

 

 

 

 

কিউএনবি/রেশমা/৮ই জানুয়ারি, ২০১৮ ইং/সকাল ১১:৩৯