১৭ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ৩রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ১১:২৮

মেয়েদের ঋতুচক্রের সময় স্তনে ব্যথা

অনেক মেয়েই ঋতুচক্রের সময় তাদের স্তনে তীব্র ব্যথা অনুভব করে। একে মাস্টালজিয়া বলা হয়। এ ধরনের ব্যথার কারণে তার স্বাভাবিক জীবনযাত্রা অনেক সময় অচল হয়ে পড়ে, মেয়েটি নিদ্রাহীনতায় ভোগে এবং তার স্বাভাবিক যৌনজীবনও ব্যাহত হয়। মাস্টালজিয়া এসব মেয়ের মনে তীব্র ভীতির সঞ্চার করে।
অনেক মেয়েই ধারণা করে যে স্তনের এ ব্যথা বুঝি বা স্তন ক্যান্সারের কারণে হয়। কিন্তু তাদের এ ধারণা একদমই ঠিক নয়। ঋতুচক্র বা মাসিকের সময় ইসট্রোজেন হরমোনের প্রতি তাদের স্তনের বাড়তি স্পর্শকাতরতার কারণেই অনেক সময় এ সমস্যাটির সৃষ্টি হয়। স্তন ক্যান্সার বা অন্য কোনো জটিল রোগে এমন ব্যথা হওয়ার কোনো সুযোগই নেই।
কারো মাস্টালজিয়া হচ্ছে চিন্তা করলে চিকিৎসকের (ব্রেস্ট সার্জন) পরামর্শ নেয়া উচিত। এ সময় মেয়েটিকে সারা দিন একদম সঠিক মাপের  একটি ব্রা পরে থাকতে হয় এবং রাতের বেলা একটি তুলতুলে নরম ব্রা  পরে থাকতে হয়। এ সময় কফি পান করলে ব্যথার তীব্রতা বাড়তে পারে তাই এসব পানীয় এড়িয়ে চলতে হবে।
চিকিৎসক শুরুতেই জানতে চাইতে পারেন মাসের ঠিক কদিন এবং কী মাত্রায় এ ব্যথা থাকে। তাই ভুক্তভোগীকে অবশ্যই এর সঠিক বর্ণনা দিতে হবে। প্রথমেই মনে রাখতে হবে এটা কোনো রোগ নয়, শুধু একটি উপসর্গ, এ জন্য স্তন বা মেয়েটি কারোরই কোনো ক্ষতি হচ্ছে না। ব্যথার স্থায়ী নিবারণের জন্য চিকিৎসকরা অয়েল অব ইভিনিং  নামক এক ধরনের ওষুধ তিন মাসের জন্য সেবন করার উপদেশ দেন এবং এতে ৩৫-ঊর্ধ্ব বেশির ভাগ মহিলাই ভালো অনুভব করেন। যাদের খুব তীব্র ব্যথা থাকে তাদের ইস্ট্রোজেনবিরোধী ওষুধ যেমন ডানাজল বা টেমোক্সিফেন অথবা প্রলাকটিনবিরোধী ব্রোমোক্রিপটিন বা এলএইচআরএইচ এগোনিস্ট সেবন করার পরামর্শ দেয়া হয়।
যাদের স্তনের ব্যথা ঋতুচক্রের সঙ্গে সম্পর্কিত নয় তাদের চিকিৎসা কিন্তু ভিন্ন। এসব মহিলার ক্ষেত্রে প্রথমেই জেনে নিতে হবে এটা সত্যি সত্যিই স্তনের ব্যথা না বুকের মাংসপেশি বা অন্য কোথাও এর উৎস। যদি সত্যিই স্তনের ব্যথা হয় তাহলে অবশ্যই স্তন বায়োপসি করে নিশ্চিত হতে হবে যে তার স্তন ক্যান্সার হয়নি। এটা নিশ্চিত করতে পারলে এসব ক্ষেত্রে ব্যথানাশক ওষুধ সেবন অথবা ব্যথার স্থানে অবশ করা ইনজেকশন ব্যবহার করে এ সমস্যা থেকে নিস্তার পাওয়া যেতে পারে।

A.H.R-5