১৮ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ৪ঠা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ৯:১৩

তিন বেলা খেয়েই সাতদিন পার দম্পতির!

পৃথিবীতে প্রতিদিনই নিত্য নতুন ঘটনার জন্ম হয়। কিছু ঘটনা মর্মস্পর্শী, কিছু আশ্চর্যজনক। আর এমন কিছু ঘটে যা সম্পূর্ণ অবিশ্বাস্য। এমনই একটি অবিশ্বাস্য ঘটনার জন্ম দিলেন যুক্তরাষ্ট্রের এক দম্পতি।

ওই দম্পতির নাম অকাহি রিকার্ডো (৩৬) ও তাঁর স্ত্রী ক্যামেলিয়া ক্যাস্টেলো (৩৪)। তাদের ৬ বছরের এক পুত্র ও ২ বছর বয়সী এক কন্যা সন্তানও রয়েছে।

 

কারণ তাঁদের খাওয়াদাওয়ার পরিমাণ। সপ্তাহে নাকি মোটে তিন বার খেয়ে থাকেন তাঁরা। তাও আবার কী খাবার জানেন? ভেজিটেবিল স্যুপ আর কয়েক টুকরো ফল। সব সময় যে দুটোই খান এমনটাও নয়। হয়তো কখনো শুধু স্যুপ বা কখনো শুধুই ফলও থাকে খাদ্য তালিকায়। আর ৩ বার খাওয়াটাও নাকি সপ্তাহে সর্বাধিক ৩ বার খাওয়া। তেমন ইচ্ছে না করলে তার থেকে কম খেও কাটিয়ে দেন দুজনে।

তাঁদের নাকি এত খাবারের প্রয়োজন পড়ে না।

বিশুদ্ধ বাতাস এবং মহাজগতিক পুষ্টি থেকেই জীবনের প্রয়োজনীয় এনার্জি সঞ্চয় করে নেন তাঁরা। এসব কিছুর শুরু হয় সাউথ আমেরিকায় এক বন্ধুর থেকে ‘ব্রিদারিয়ানিজম‘ নিয়ে জানতে পারার পর। আগে থেকেই দুজনেই ছিলেন নিরামিশাষী। ২০০৮ সালে ২১ দিনের একটি ‘ব্রিদারিয়ান‘ পদ্ধতির অনুশীলনের মধ্যে দিয়ে যান দুজনে। তার মধ্যে প্রথম ৭ দিন শুধু বাতাস খেয়ে ছিলেন তাঁরা‚ পরের ৭ দিন খেয়েছিলেন অল্প পরিমাণে পানি ও পাতলা জুস আর শেষ ৭ দিনের ডায়েট ছিল আরো পাতলা জুস ও পানি।

এই ২১ দিনের অনুশীলনই নাকি মোড় ঘুরিয়ে দেয় তাঁদের জীবনের। এরপর থেকে আর নাকি খাবার খাওয়ার প্রয়োজনই অনুভব করেননি এই দম্পতি। তাঁরা বুঝেছিলেন শুধু বাতাসই জীবনের প্রয়োজনীয় এনার্জি এনে দেওয়ার জন্য যথেষ্ট। এমনকি এই খাদ্যাভ্যাস নিয়েই ২০১১ সালে প্রথম সন্তানেরও জন্ম দিয়েছেন ক্যামেলিয়া। প্রেগন্যান্সির ৯ মাসে নাকি মোটে ৫ বার খাবার খেয়েছিলেন তিনি‚ তাও আবার কিছু সামাজিক অনুষ্ঠানে। তাতে কোনও অসুবিধে হয়নি তাঁর সন্তানের। রক্ত ও অন্যান্য পরীক্ষার ফলও ছিল একদম পারফেক্ট।

প্রথম সন্তানের জন্মের পর তাঁরা কিছুটা ফ্যামিলি টাইম কাটানোর জন্য ফল ও স্যুপ খাওয়া শুরু করেন। তবে তাঁদের দুই সন্তানের জন্য কিন্তু খাবারের কোনো বিধিনিষেধ রাখেননি এই দম্পতি। অকাহি ও ক্যামেলিয়া চান তাঁদের সন্তানরা সব খাবারের স্বাদ বুঝতে শিখুক ও নিজেরাই বেছে নিক নিজেদের পথ।