১৬ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ২রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | দুপুর ১:৩৬

ফেনীতে রাজাকার কাদের এর কান্ড মামলা দিয়ে সাধারণ মানুষকে হয়রানী।

 

আবদুল্লাহ রিয়েল,সোনাগাজী প্রতিনিধি : ফেনীর সোনাগাজী উপজেলার বগাদানা ইউনিয়নের গজারিয়া গ্রামের মৃত আহাম্মদ মিয়ার পুত্র রাজাকার আঃ কাদের হত দরিদ্র আপন মৃত ভাইয়ের স্ত্রী ও ভাতিজা ভাতিঝি সহ এলাকার সাধারণ মানুষকে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগ পাওয়া গেছে। ভুক্তভোগী, থানা, আদালতের মামলা সূত্রে জানা গেছে আঃ কাদের সোনাগাজী থানার যুদ্ধ অপরাধী মামলার ২নং আসামী, যার মামলা নং-০৪ তাং ৮/৬/২০০৯। যুদ্ধ পরবর্তী ১৯৭৮ সালে বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীতে ভর্তি হয়।

সি.আই.ডি.ওসি থেকে অবসর গ্রহণ করে ২০১৭ সালে। তাহার আপন ভাই মৃত নজির আহাম্মদ এর ওয়ারিশদের সাথে জায়গা জমিন সংক্রান্ত বিরোধ চলছে যাহা দেওয়ানী ও ফৌজদারী কয়েকটি মামলা চলমান। এই নিয়ে বেশ কয়েকবার শালিস দরবার হয়। চেয়ারম্যান এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিদের উপস্থিতিতে। গ্রামের মানুষ শালিসের তাহার মিথ্যা পক্ষ অবলম্বন না করার অপরাধে গ্রামের সাধারণ মানুষকে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করিতেছে। আত্মীয় স্বজন ও এলাকার নিরীহ মানুষকে জেল খাটাচ্ছে।

এখনও কয়েকজন জেল হাজতে আছে থানা প্রশাসনের এক শ্রেণীর দুর্নীতি বাজ কর্মকর্তাদের সাথে তাহার রয়েছে গভীর সম্পর্ক। তাই কথায় কথায় মিথ্যা মামলা দিয়ে জেল খাটানো তার জন্য ব্যাপার নয়। সাধারণ মানুষের প্রশ্ন রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আঃলীগ সরকার আর সোনাগাজী থানার তালিকা ভুক্ত যুদ্ধ অপরাধী রাজাকার যার হাতে সোনাগাজীতে শত শত মানুষ খুন হয়। বহু মায়ের ইজ্জত হারায়।

সেই রাজাকার কাদের ৭১ স্টাইলে সাধারণ মানুষকে মামলা দিয়ে হয়রানি করিতেছে সেই ৭১ সালে হত্যা লুট পাটূ করে ও যুদ্ধ পরবর্তী পুলিশের চাকুরী করে অবৈধ উপায় কোটি কোটি টাকা নামে বেনামে গচ্ছিত করেছে। সেই বর্তমান ঢাকার বনশ্রীতেসহ পরিবারে বসবাস করিতেছে। সেই গত ২ ডিসেম্বর ২০১৭ এলাকার সাধারণ মানুষকে জড়িয়ে একটি ম্যিথা মামলা দায়ের করে সোনাগাজী থানায়। ঐ মামলার হাত থেকে বাঁচতে অনেকে পালিয়ে বেড়াচ্ছে। মামলা নং ১, তারিখ ২/১২/২০১৭ইং সাধারণ মানুষ রাজাকার কাদের এর হাত থেকে বাঁচতে প্রধানমন্ত্রী সহ উর্ধ্বতন প্রশাসনের হস্তক্ষেপ চায়।

 

 

 

কিউএনবি/সাজু/৩১শে ডিসেম্বর, ২০১৭ ইং/সন্ধ্যা ৬:১০