১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সকাল ৭:২৮

চবি’তে পাহাড়িদের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে আহত ৫ জন, আটক ৩

হাটহাজারী (চট্টগ্রাম) : চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) পাহাড়ি ছাত্রদের দুই গ্রুপ (ইউপিডিএফ) এবং জেএসএস এর মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছে ৫ জন। আহতদের মধ্যে একজনের অবস্থা গুরুতর। এ সময় ঘটনাস্থল থেকে সন্দেহজনক ৩ জনকে আটক করা হয়েছে।

বুধবার সন্ধ্যার সাড়ে ৭টার দিকে চবির ২ নং গেট এলাকায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ সময় ২ নং বাজারের অবস্থিত শফি টাওয়ারের ৩টি দোকান ভাঙচুরের ঘটনাও ঘটে। রাত ৯টার দিকে উপজাতীদের ছাত্রাবাস বিশ্ব শান্তি প্যাগোডায় দ্বিতীয় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এই সময় ছাত্রলীগের বিজয়ের কর্মীরা অংশ নেয়।

আহতরা হলেন, চবির আধুনিক ভাষা ইনিষ্টিটিউটের ২য় বর্ষের ছাত্র রিংকু চাকমা, পালি বিভাগের ২য় বর্ষের ছাত্র ভুবন চাকমা ও বাপ্পি চাকমা, নৃবিজ্ঞান বিভাগের ২য় বর্ষের ছাত্র কৃতিষ চাকমা এবং লোক প্রশাসন বিভাগের ২য় বর্ষের ছাত্র হিমেল চাকমা।

এ ঘটনায় আটকৃতরা হলেন, জ্যোতিষ্ক চাকমা এবং আব্দুল মোমেন। তবে আটকৃত অন্য আরেক জনের নাম জানা যায়নি।

জানা গেছে, আগামী ১০ মার্চ উপজাতিদের সংগঠন উপজাতি ছাত্র পরিষদ পুর্নমিলনির আয়োজন করে। কিন্তু অনুষ্ঠানের আয়োজন নিয়ে দুইটি দলে বিভক্ত হয়ে পরে। এই নিয়ে গত এক সপ্তাহ ধরে নিজেদের মধ্যে অন্তঃকোন্দ্রল দেখা দেয়। এ নিয়ে গতকাল হাটহাজারী থানায় অভিযোগও দায়ের করেন জেএসএস’র কর্মীরা। পুর্নমিলনীকে কেন্দ্র করে বুধবার সকাল থেকে একে অপরকে মোবাইল ফোনে হুমকি প্রদান করছিলও বলে জানা গেছে। পরে সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে ঘটনার সুত্রপাত হয়।

চবি মেডিকেল সেন্টরের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. টিপু সুলতান বলেন, আহত ছাত্র রিংকুর মাথায় ও হাঁটুতে গুরুতর আঘাত লেগেছে। তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে চমেকে পাঠানো হয়েছে।

রিংকু চাকমা আহত হওয়ার খবর ক্যাম্পাসে ছড়িয়ে পড়লে ছাত্রলীগের বগি ভিত্তক সংগঠন বিজয়ের কর্মীরা রাত নয়টার দিকে বিশ্ব শান্তি প্যাগোড়ায় আবারো হামলা চালায়। এই সময় পুলিশ এসে পরিন্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এই সময় জ্যোতিষ্ক চাকমা এবং আব্দুল মোমেন সহ আরো এক জনকে সন্দেহ জনক ভাবে আটক করে পুলিশ।

উল্লেখ্য, আহত রিংকু চাকমা এবং আটক জ্যোতিষ্ক চাকমা উভয় ছাত্রলীগের বিজয় গ্রুপের কর্মী। তারা দুই জনই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিভিন্ন মেয়াদে বহিষ্কৃত হয়েছে।
এ ব্যাপারে চবি পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ হাবিবুর রহমান বলেন, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখা হয়েছে। গুরুতর আহতদের চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (চমেক) পাঠানো হয়েছে। তিনজনকে আটক করে হাটহাজারী মডেল থানায় পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে।