১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ৩:২৫

সৈয়দপুরে ইউপি নির্বাচনে আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ

মো. আইয়ুব আলী, নীলফামারী থেকে: নীলফামারীর সৈয়দপুরে আগামী ৪জুন ৬ষ্ঠ ধাপের নির্বাচনী প্রচারণা জমে উঠেছে ৫টি ইউনিয়নে । প্রার্থী, কর্মী-সমর্থকরা গাঁ ঝাড়া দিয়ে প্রচার-প্রচারণায় নেমে পড়েছেন। ইউনিয়নের মোড়ে মোড়ে ও গুরুত্বপূর্ণ স্থানে দঁড়িতে ঝুলঝে প্রার্থীদের ছবি ও প্রতীক সম্বলিত পোষ্টার।

ওই ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৩১ জন সাধারণ সদস্য পদে ১৯৮ জন ও সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে ৬৮ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। প্রার্থীরা দলীয় প্রতীক স্বতন্ত্র প্রার্থীরা নির্বাচন কমিশনের সংরক্ষিত প্রতীক বরাদ্দ নিয়ে খুলি বৈঠক, পথসভা করছেন।

উপজেলার ১নং কামারপুকুর ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান জিকো আহমেদ (নৌকা), রেজাউল করিম লোকমান ( ধানের শীষ), এমদাদুল হক (লাঙ্গল), স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে সাবেক চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম (চশমা), নূর আলম ভরসা (আনারস), ফয়েজ আহমেদ ( টেলিফোন), আনোয়ার হোসেন সরকার ( মোটর সাইকেল), মমিনুর রহমান মমিন ( ঘোড়া) চেয়ারম্যান পদে ভোটযুদ্ধে নেমেছেন।

উপজেলার ২নং কাশিরাম বেলপুকুর ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান এনামুল হক চৌধুরী ( নৌকা), আনিছুল হক চৌধুরী (ধানের শীষ), কামরুন নাহার ইরা (হাতুরী), লানছু চৌধুরী ( গোলাপ ফুল), স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে কাজী জিয়াউর রহমান ( অটো রিকশা), সাবেক চেয়ারম্যান আজহারুল ইসলাম ভুতুলু ( মোটর সাইকেল), তাজুল ইসলাম ( ঘোড়া), সামসুল হক ( আনারস) প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

উপজেলার ৩নং বাঙ্গালিপুর ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান ডা. শাহজাদা সরকার ( নৌকা), সাইদুল হক বাবলু ( ধানের শীষ), কামাল আহমেদ ( লাঙ্গল) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রণোবেশ চন্দ্র বাগচী ( আনারস) ভোটের জন্য লড়ছেন।

উপজেলার ৪নং বোতলাগাড়ী ইউনিয়নে হেলাল চৌধুরী ( নৌকা), রফিকুল ইসলাম ( ধানের শীষ), জহির উদ্দিন সরকার ( লাঙ্গল), স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে বর্তমান চেয়ারম্যান ছাইদুর সরকার ( ঘোড়া), আজাহার আলী ( মোটর সাইকেল), মোন্নাফ আলী (আনারস), হাসিবুর রহমান চৌধুরী ( চশমা) চেয়ারম্যান পদে ভোটযুদ্ধে অবতীর্ণ হয়েছেন।

উপজেলার ৫নং খাতামধুপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে মাসুদ রানা (নৌকা), লুৎফর রহমান সরকার ( ধানের শীষ), স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে বর্তমান চেয়ারম্যান জুয়েল চৌধুরী ( আনারস) ও মাহাফুজ রেজা ( টেলিফোন) ভোটের জন্য মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন।

পাঁচটি ইউনিয়নের নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে মনোনীত পাঁচটি দলের ১৫ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এর মধ্যে আওয়ামী লীগের ৫ জন, বিএনপির ৫ জন, জাতীয় পার্টির ৩ জন, ওয়ার্কাস পার্টির ১ জন ও স্বতন্ত্র পরিচয়ে প্রার্থী হয়েছেন ১৬ জন। নির্বাচনে দলীয় নেতা-কর্মী ও সমর্থকরা দলের প্রার্থীর পক্ষে ভোট প্রার্থণা করছেন। স্বতন্ত্র প্রার্থীরা তাদের কর্মী- সমর্থকরাও বসে নেই। তারা ছুটছেন ভোটারদের বাড়ি বাড়ি। কাক ডাকা ভোর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত চলছে প্রচার- প্রচারণার কাজ।

ইতোমধ্যে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী ও সমর্থকদের ওপর হামলা, প্রভাবশালী প্রার্থীদের এলাকা ভিত্তিক প্রভাব, প্রচার কাজে মসজিদ- মন্দিরের মাইক ব্যবহার, গভীর রাত পর্যন্ত প্রচারণা, গেঞ্জিতে প্রার্থীর ছবিসহ প্রতীক ব্যবহার ইত্যাদি ঘটনা ঘটেছে। বিভিন্ন প্রার্থীর পক্ষ থেকে নির্বাচনের আচরণবিধি লঙ্ঘনের এসব দিয়েছেন রিটার্নিং অফিসারের কাছে। ফলে ভোট উৎসবের সাথে গোলযোগের আশংকা করছেন ভোটাররা।

কুইকনিউজবিডি.কম/এসবি/৩০.০৫.২০১৬/৭:০০