১৫ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ১লা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ১০:৪৯

ভুল চিকিৎসায় রোগীর মৃত্যু : চিকিৎসকের বিরুদ্ধে মামলা

 

ডেস্ক নিউজ : পটুয়াখালী ২৫০ শয্যা বিশিস্ট হাসপাতালে ভুল চিকিৎসায় এক হাত ভাঙ্গা রোগীর মৃত্যুর অভিযোগে ডাক্তার সেলিমসহ অজ্ঞাত ৪/৫ জনকে আসামী করে সদর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছে।  ভুল চিকিৎসায় মৃত আনছার মোল্লার ছেলে মো. রাসেল।

জানাগেছে, পটুয়াখালী জেলার পাশ্ববর্তী বরগুনা জেলার আমতলী থানার আঠারগাছিয়া ইউনিয়নের সোনাখালী গ্রামের মৃত হাফেজ মোল্লার ছেলে আনছার মোল্লা (৫৪) হাত ভাঙ্গা নিয়ে ঘটনার ১৫ দিন পূর্বে ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট পটুয়াখালী হাসপাতালের অর্থপ্যাডিকস বিভাগের ডাঃ সেলিম মাতব্বর এর চিকিৎসা নিয়ে ব্যান্ডিস করিয়ে বাড়ি ফিরে যান।

পরবর্তীতে ডাক্তারের কথা মত আনছার মোল্লা তার ছোট ছেলে ইমরানকে নিয়ে ১৯ নভেম্বর হাসপাতালে আসলে ডাঃ সেলিম তাকে পুনঃরায় এক্স-রে করতে বলে। ডাক্তার এক্স-রে দেখে বলে হাড় সঠিক ভাবে জয়েন্ট হয়নি, অপারেশন করতে হবে এবং বিশ হাজার টাকা লাগবে। রোগী আনছার মোল্লা অপারেশনের জন্য হাসপাতালে ভর্তি হয় এবং নগদ ৮ হাজার টাকা জমা দেন। ঘটনার দিন ২১ নভেম্বর মঙ্গলবার সকালে ডাক্তার সেলিম আনছার মোল্লাকে অপারেশনের জন্য ওটিতে নেয়।

অপারেশন শেষে আনছার মোল্লাকে অজ্ঞান অবস্থায় বেডে আনা হয়। বিকাল ৫ টায় ডাক্তার সেলিম মাতব্বর আনছার মোল্লার সাথে আসা তার ছোট ছেলে ইমরান মোল্লাকে স্বাক্ষর দিয়ে তার বাবার মৃত দেহ নিতে বলে। বাবার মৃত্যুর কথা শুনে ইমরানের আহাজারিতে ঘটনাস্থলে অন্যান্য রোগী ও আশপাশের লোকজন জড়ো হয়।

হাত ভাঙ্গা রোগীর অপারেশনের মৃত্যুর খবরে রোগীর স্বজনসহ স্থানীয় লোকজন উত্তেজিত হলে ডাঃ সেলিম মাতব্বর হাসপাতাল থেকে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় রাতে মৃত আনছার মোল্লার বড় ছেলে রাসেল মোল্লা বাদী হয়ে ভুল চিকিৎসার অভিযোগ করে ডাঃ সেলিমসহ অজ্ঞাত ৪/৫ জনকে আসামী করে  পটুয়াখালী সদর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা খন্দকার মোস্তাফিজুর রহমান জানায় ,ডাক্তার সেলিমের বিরুদ্ধে ভুল চিকিৎসার অভিযোগ এনে মামলা দায়ের করেছে।যার নং-৩৫।এ বিষয়ে তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

কিউএনবি/রেশমা/২৩শে নভেম্বর, ২০১৭ ইং/রাত ১২:৩১