২০শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ৫ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সকাল ৮:৪৮

নারায়ণগঞ্জে শিশুকে পানিতে ফেলে হত্যা, মুয়াজ্জিনের দায় স্বীকার

নিউজ ডেস্কঃ নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে সুমাইয়া আক্তার নামে এক শিশুকে পানিতে ফেলে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। হত্যার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে সুতালাড়া জামে মসজিদের মুয়াজ্জিন হাফেজ জহিরুল ইসলামকে আটক করে পুলিশ।

হত্যার ঘটনার দুদিন পর আজ শনিবার দুপুরে উপজেলার তারাব পৌরসভার সুতালাড়া এলাকার একটি পুকুর থেকে ঐ শিশুর মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহত শিশু সুমাইয়া আক্তার নেত্রকোণা জেলার ওয়াজিদ মিয়ার মেয়ে। আটক হাফেজ জহিরুল ইসলাম সুতালাড়া জামে মসজিদের মুয়াজ্জিন হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন।

অভিযুক্ত মুয়াজ্জিন জানান, আরবি পড়া শেষ মসজিদ ঝাড়ু দেওয়ার জন্য সুমাইয়াকে রাখা হয়। কিন্তু শিশুটি মসজিদের ঝাড়ু দিতে গিয়ে আহত হয়। বিষয়টি জানাজানি হলে এলাকাবাসী তাকে মারধর করতে পারে, এই ভয়ে তিনি সুমাইয়াকে পাশের ডোবায় ফেলে দেন।

রূপগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মাহাবুবুল আলম জানান, বৃহস্পতিবার সকালে আরবি পড়ার জন্য সহপাঠীদের সঙ্গে মসজিদে যায় শিশু সুমাইয়া। এরপর সব শিশুকে ছুটি দিয়ে দিলেও সুমাইয়া আক্তারকে ছুটি দেয়নি মুয়াজ্জিন।পরে সুমাইয়াকে হত্যা করে মসজিদের পাশে পুকুরে ফেলে দেয়।

আজ দুপুরে পুকুরে সুমাইয়ার লাশ ভাসতে দেখে স্থানীয়রা পুলিশে খবর দেন। পরে পুলিশ ঘটনাস্থল পৌঁছে লাশ উদ্ধার করে নারায়ণগঞ্জ হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। শিশুটির শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে।

 এ ঘটনায় রূপগঞ্জ থানায় হত্যার মামলা দায়ের করা হয়েছে।

কুইকনিউজবিডি.কম/টিআর/২১.০৫.২০১৬/২১:৪০