১৫ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ১লা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | দুপুর ২:৪০

শরীয়তপুরে ভূয়া পরীক্ষার্থী রেশমার ১ বছর কারাদন্ড

বিশেষ প্রতিবেদক : শরীয়তপুরে বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের বিএ/বিএসএস এর ১৪ তম ব্যাচের ষষ্ঠ সিমেষ্টারের সমাজ তত্ত্ব-৫ পরীক্ষায় অন্যের প্রবেশ পত্রে পরীক্ষা দিতে এসে ধরাপরে রেশমা আক্তার নামে এক ছাত্রী এক বছর কারাদন্ড প্রাপ্ত হয়েছে।


১৩ অক্টোবর শুক্রবার বিকালে ডামুড্যা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা গিয়াসউদ্দিন আহমেদ ওই ছাত্রীকে ডামুড্যা পূর্ব মাদারীপুর কালেজ পরীক্ষা কেন্দ্র থেকে আটক করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট হাজির করেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রোজী আক্তার ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে ওই ছাত্রীকে ১ বছর বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করেন।


জানাগেছে, নড়িয়া উপজেলার রাজনগর পুনাই খার কান্দি গ্রামের মৃত মজিবর রহমান কাজীর মেয়ে রোজিনা আক্তার জেবা নামের এক শিক্ষার্থী বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিনে বিএ/বিএসএস ১৪ তম ব্যাচের ষষ্ঠ সিমেষ্টারের পরীক্ষার্থী।


শুক্রবার সমাজ তত্ত্ব-৫ বিষয়ে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। সেই পরীক্ষায় রোজিনা আক্তারের বোন সেজে নড়িয়া উপজেলার রাজনগর পুনাই খার কান্দি গ্রামের আঃ হক চৌকিদারের মেয়ে শরীয়তপুর সরকারী কলেজের বিএ দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী রেশমা আক্তার পরীক্ষা দিতে হলে প্রবেশ করে। বিগত কয়েক পরীক্ষায়ও রেশমা রোজিনার প্রবেশ পত্র ব্যবহার করে পরীক্ষা দেয়। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আজ রেশমা হাতে নাতে ধরাপরে।


পূর্ব মাদারীপুর কলেজের শিক্ষক কর্মচারী সূত্র জানায়, অফিস সহকারী আবুল ফজল মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে পরীক্ষার সময় পরীক্ষার্তীদের নকল সরবরাহ, পরীক্ষার খাতা বাহিরে সাপ্লাই ও প্রবেশ পত্রের ছবি পরিবর্তণ করে অন্যকে পরীক্ষা দিতে সুবিধা করে দেয়। তাছাড়া পারীক্ষার সময় বিভিন্ন সুবিধার নাম করে প্রতি শিক্ষার্থীর কাছ থেকে ৩শত করে টাকা আদায় করে। আজও এ ছাত্রী সাজা পরবর্তী ডামুড্যার আরো দুজন ভূয়া পরীক্ষার্থী ধরা পরে। ফজল তাৎক্ষনিক প্রকৃত পরীক্ষার্থীদের উপস্থিত করতে সক্ষম হয় বলে বেচে যায়।


পূর্ব মাদারীপুর কলেজের অধ্যক্ষ মো জহিরুল্লাহ বলেন, গত পরীক্ষায় ওই ছাত্রীকে সন্দেহ হয়। আজ পরীক্ষার্থীর সাথে প্রবেশ পত্রের ছবির মিল না থাকায় তাকে আটক করে প্রশাসনের কাছে দেয়া হয়। প্রশাসন ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে ওই ছাত্রীকে কারাদন্ড প্রদান করেছে।


ডামুড্যা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রোজী আক্তার বলেন, একজন ভূয়া পরীক্ষার্থী অন্যের পরীক্ষা দিতে আসে। তাকে চিহ্নিত করে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রন আইনে ১ বছর কারাদন্ড প্রদান করা হয়েছে।

কিউএনবি/খায়রুজ্জামান/১৩ই অক্টোবর ,২০১৭ ইং/ সন্ধ্যা ৭:৩০