২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ১১ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সকাল ৭:০০

ভোলায় ইলিশ শিকারের দায়ে ১৭ জেলে ও নৌকা আটক

 

ডেস্ক নিউজ : প্রশাসনের অভিযানের মধ্যেও থেমে নেই ইলিশ শিকার। নিষেধাজ্ঞার পরেও ভোলার মেঘনা ও তেঁতুলিয়া নদীতে চলছে ইলিশ শিকার।

চলছে প্রশাসনের অভিযানও। আটক করে জেল-জরিমানা দেওয়া হচ্ছে জেলেদের। পুড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে জাল। ঠুকে দেওয়া হচ্ছে মামলা। তবুও চলছে ইলিশ শিকার।  

নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ভোলার মেঘনায় ইলিশ শিকারের দায়ে ১৭ জেলেকে আটক করেছে কোস্টগার্ড, মৎস্য বিভাগ ও পুলিশের সমন্বয়ে গঠিত যৌথ টিম। এ সময় প্রায় সাড়ে ৫২ হাজার মিটার অবৈধ কারেন্ট জালসহ বিভিন্ন জাল ও ৭৩ কেজি ইলিশ মাছ জব্দ করা হয়। আটক করা হয়েছে মাছ ধরার নৌকা।    

কোস্টগার্ড ভোলার দক্ষিণ জোনের কর্মকর্তা লেপ্টেন্যান্ট কমান্ডার ভিকসন চৌধুরী জানান, কোস্টগার্ড সদস্যরা গতকাল মঙ্গলবার সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত ভোলা সদর উপজেলার ভেদুরিয়া ও ইলিশাঘাট এলাকার মেঘনা নদীতে অভিযান চালায়।

এ সময় ৭ জেলেসহ একটি মাছ ধরার কাঠের নৌকা আটক করা হয়। জব্দ করা হয় ১৫ হাজার মিটার অবৈধ নিষিদ্ধ কারেন্ট জাল ও ২০ কেজি ‘মা’ ইলিশ।

তিনি আরো জানান, আটককৃত জেলেদেরকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের কাছে সোপর্দ করা হলে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মৃধা মুজাহিদুল ইসলামের নেতৃত্বাধিন ভ্রাম্যমাণ আদালত বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ডাদেশ দেন।   

জেলা মৎস্য কর্মকর্তা রেজাউল করিম জানান, মা ইলিশ রক্ষা অভিযানের অংশ হিসেবে মঙ্গলবার সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত মেঘনা ও তেঁতুলিয়া নদীতে অভিযান চালিয়ে ১০ জেলেকে আটক করা হয়। জব্দ করা হয়েছে সাড়ে ৩৭ হাজার জাল ও ৫৩ কেজি মাছ। যার মূল্য প্রায় ১০ লাখ ৮৭ হাজার ৫০০টাকা। আটক করা হয়েছে একটি মাছ ধরার নৌকা। জরিমানা করা হয়েছে ৭১ হাজার টাকা। জব্দকৃত মাছ এতিমখানায় বিতরণ করা হয়েছে।

আটককৃত জাল আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। জেলেদের বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। এ ঘটনায় মামলা দায়ের করা হয়েছে ৭টি।

কিউএনবি/রেশমা/১১ই অক্টোবর, ২০১৭ ইং/সকাল ৯:১৪