১৯শে নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ২:৪৮

গৃহকর্মীকে ধর্ষণের পর গর্ভের সন্তান নষ্টের অভিযোগ

 

ডেস্কনিউজঃ ফরিদপুরের নগরকান্দা উপজেলায় বাড়ির মালিকের ছেলের বিরুদ্ধে গৃহকর্মীকে (১৭) বিয়ের প্রলোভনে একাধিকবার ধর্ষণ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ওই ঘটনায় মেয়েটি অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়লে ওষুধ দিয়ে সেই সন্তানও নষ্ট করে ফেলা হয়।

এই ঘটনায় উপজেলার লস্করদিয়া ইউনিয়নের দাদপুর গ্রামের মাহফুজ শেখের (২২) বিরুদ্ধে নগরকান্দা থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছে মেয়েটির পরিবার।

অভিযোগ অস্বীকার করে মাহফুজের মা বলেন, ‘মেয়ের বাবা আমাদের কাছ থেকে কিছু টাকা ধার নিয়েছিল। সেই টাকাগুলো আত্মসাৎ করতে এবং আমাদের থেকে মোটা অঙ্কের টাকা আদায় করার জন্য আমার ছেলের বিরুদ্ধে তারা মিথ্যা অভিযোগ করছে।’

ওই গৃহকর্মী জানায়, নগরকান্দা উপজেলার লস্করদিয়া ইউনিয়নের দাদপুর গ্রামের মৃত বাবু শেখের বাড়িতে কাজ করত সে। প্রায় দুই বছর আগে বাড়িওয়ালার ছেলে মাহফুজ শেখ তাকে প্রেমের প্রস্তাব দেন। কিন্তু মাহফুজ ধনী পরিবারের সন্তান হওয়ায় প্রথমে তাঁর প্রস্তাবে রাজি হয়নি সে। পরে ধর্মগ্রন্থ ছুঁয়ে শপথ করে তাকে বিয়ে করার প্রতিশ্রুতি দেন মাহফুজ। একপর্যায়ে মেয়েটি প্রেমের প্রস্তাবে রাজি হয়। মাহফুজ বিভিন্ন কৌশলে মেয়েটির সঙ্গে একাধিকবার শারীরিক সম্পর্ক করে। এরই মধ্যে মেয়েটির গর্ভে সন্তান আসে। বিষয়টি মাহফুজকে জানালে এবং বিয়ের জন্য চাপ দিলে তিনি ওষুধের মাধ্যমে সন্তান নষ্ট করে ফেলার পরামর্শ দেন। এরপর সে মাহফুজের দেওয়া ওষুধের মাধ্যমে গর্ভের সন্তান নষ্ট করে ফেলে। পরে বিয়ের জন্য চাপ দিলে মাহফুজ সব সম্পর্ক অস্বীকার করে সম্প্রতি তাকে বাড়ি থেকে বের করে দেন। সে মাহফুজের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করে।

এ ব্যাপারে মেয়েটির বাবা বলেন, ‘আমরা বিশ্বাস করে মেয়েকে মাহফুজদের বাড়িতে কাজে দিয়েছিলাম। কিন্তু বিয়ে করার কথা বলে মাহফুজ আমার মেয়েকে নষ্ট করেছে। আমরা চাই মাহফুজ আমাদের মেয়েকে বিয়ে করে স্ত্রীর মর্যাদা দিক।’

যোগাযোগ করা হলে নগরকান্দা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ এফ এম নাসিম বলেন, মেয়েটির সঙ্গে বিয়ের প্রলোভনে শারীরিক সম্পর্ক করার অভিযোগ পেয়েছি। অভিযোগের ভিত্তিতে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

 

কিউএনবি/বিপুল/২৪শেশে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং/রাত ১:৪৫