১৭ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ৩রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ৯:১১

আধিপত্য বিস্তার নিয়ে আ.লীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষ, আহত ২৫

 

ডেস্কনিউজঃ ফরিদপুরের বোয়ালমারী উপজেলায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে নারীসহ উভয় পক্ষের অন্তত ২৫ জন আহত হয়েছেন। এ সময় চারজনকে আটক করেছে পুলিশ।

সংঘর্ষের সময় ঘরবাড়ি ভাঙচুর ও লুটপাটের অভিযোগ পাওয়া গেছে। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে।

আজ শনিবার ভোর ৫টার দিকে উপজেলার ময়না ইউনিয়নের চরবর্ণি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

আহতদের মধ্যে কয়েকজনকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। বাকিদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

আটক চারজন হলেন বর্ণিচর গ্রামের সেলিম শেখ (৪৮), সাহিদ মোল্লা (৫০), আহমেদ (৩০) ও মিঠু (২২)।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত রোববার চরবর্ণি গ্রামের আওয়ামী লীগ নেতা ইমরান শেখের সমর্থক বাবুল শেখ একই গ্রামের উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য, মধুবর্ণি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আনিছুজ্জামান আনিছের সমর্থক হাবিব, মঞ্জু ও মুন্নুকে মারধর করেন। এর জেরে শনিবার ভোরে উভয় পক্ষ দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়ায়। এতে আনিছ গ্রুপের লাল খাঁ (৫০),বিল্লাল মোল্লা (৩০), চুন্নু মোল্লা (৩০), গাউস মোল্লা (৩৫), রাবেয়া বেগম (৫০), আনোয়ার শেখ (৩৫), আছিয়া বেগম (৩৫), রবিউল মোল্লা (৩৫) এবং ইমরান গ্রুপের আতাউর মোল্লা (৩০), রহিমা বেগম (২০), নাজমা বেগম (৩০), মঞ্জু (৫২), আজিজুল শেখ (১৭), আতিয়ার মোল্লা (৬০) আহত হন।  তাঁদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। বাকিদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে আনিছের সমর্থক সেলিম শেখ, সাহিদ মোল্লা, আহমেদ ও মিঠুকে আটক করে।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে আনিছ বলেন, ‘ইমরানের লোকজন গত রোববার আমার লোকজনকে মারধর করে। রোববার থানায় এ বিষয়ে সালিস হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু আকস্মিকভাবে শনিবার ভোরে ইমরান ও তাঁর লোকজন ঢাল-সড়কি নিয়ে আমার পক্ষের লোকজনের বাড়িঘর ভাঙচুর, লুটপাট ও মারধর করে।’

আনিছ অভিযোগ করেন, হামলাকারীরা তাঁর পক্ষের আবু নাছের মোল্লা, গোলাম মোস্তফা, জুয়েল ও ওমরের বাড়ি ভাঙচুর করে গরু, বাছুর, ছাগল লুট করে নিয়ে যায়।

তবে ইমরান বলেন, ‘গত রোববারের ঘটনায় থানায় মীমাংসার কথা ছিল। কিন্তু তারা সে পর্যন্ত অপেক্ষা করেনি। আনিছের সমর্থকরা দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে শনিবার ফজরের নামাজ শেষে আমার বাড়িসহ আমার লোকজনের বাড়িঘরে অতর্কিত হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করে, গরু, ছাগল, রাজহাঁস লুট করে নিয়ে যায়।’ এ সময় তাঁর পক্ষের বেশ কয়েকজন আহত হন বলে দাবি করেন তিনি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বোয়ালমারী থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আবুল হোসেন বলেন, গ্রামে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে তাদের মধ্যে দীর্ঘদিন বিরোধ চলে আসছে। বর্তমানে এলাকার পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। এ ঘটনায় উভয় পক্ষ থানায় মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছে।

 

কিউএনবি/বিপুল/২৪শেশে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং/রাত ১:২৫