১৬ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ২রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ৮:৪১

জাফলংয়ে রিলিফ কার্ডের প্রলোভন দেখিয়ে মেম্বার কতৃক নারীকে ধর্ষণ

 

 

মোঃ রেজওয়ান করিম সাব্বির,জৈন্তাপুর (সিলেট) প্রতিনিধি : সিলেটের গোয়াইনঘাটে রিলিফ কার্ডের প্রলোভন দেখিয়ে এক নারীকে ধর্ষণ করেছে ইউপি সদস্য। নারীর দাযের করা মামলায় গোপন সংবাদের ভিত্তিত্বে পুলিশ গোয়াইনঘাট বাজারে অভিযান চালিয়ে ধর্ষনকারী ইউপি সদস্যকে আটক করে। আটককৃত ইউপি সদস্য হলেন পূর্ব জাফলং ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের সদস্য নয়াবস্তির কটাই মিয়ার ছেলে আতাউর রহমান ওরফে আতাই (৪০)।

পুলিশ ও মামালা সূত্রে জানা যায়- গত ৯সেপ্টেম্বর জাফলংয়ের কালীনগরের একজন নারী রিলিফ কার্ডের জন্য ইউনিয়ন পরিষদে আতাই মেম্বারের নিকট যান। চতুর নারী লোভী আতাই তাকে মামার দোকানের মেলার মাঠের পাশে তাঁর মালিকানাধীন পাথর মিলে দেখা করতে বলে। রিলিফ কার্ডের জন্য ঐ নারী সরল বিশ্বাসে আতাই মেম্বারের পাথর মিলে দেখা করতে গেলে আতাই মেম্বার মিল ঘরে তাকে জোর পূর্বক ধর্ষণ করে।

এঘটনায় ওই ভিকটিম বাদী হয়ে গোয়াইনঘাট থানায় একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করে যাহার নং ১০ (১১-০৯-১৭)। সোমবার বিকেলে আতাই মেম্বার থানার সামনে ঘোরাঘুরি করার প্রক্কালে গোয়াইনঘাট থানার এস.আই মতিউর রহমান তাকে আটক করে। অপরদিকে আতাই প্রভাবশালী নেতার ইশারায় পর্যটন খ্যাত জাফলং পাথর কোয়ারীতে ও পিয়াইন নদীতে অবৈধ বোমা মেশিন, বিলাই বোমা পরিচালনা করে আসছে।

প্রভাবের কারনে কেউ তার বিরুদ্ধে মুখ খুলে কথা বলতে সাহস পায় না। গ্রেফতারের পর হতে এলাকার সচেতন মহল নারী ধর্ষনের ঘটনার সুষ্ট তদন্ত সাপেক্ষে দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তি দাবী করেন। যাতে আর কোন ইউপি সদস্য এমন নেক্কার জনক ঘটনার জন্ম দিতে না পারে।

এব্যাপারে গোয়াইনঘাট থানার ওসি তদন্ত হিল্লোল রায় জানান- ধর্ষণের মামলায় আতাই মেম্বারকে পুলিশ আটক করা হয়েছে। ধর্ষন মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে মঙ্গলবার কোর্ট হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

 

 

 

 

কিউএনবি/রেশমা/১২ই সেপ্টেম্বর,২০১৭ ইং/দুপুর ২:৪২