১৭ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং | ৩রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সকাল ৭:১১

এমপি প্রার্থী ফয়জুল হক এর নির্বচনী এরাকার বিভিন্ন মাজার জিয়ারতের মাধ্যমে নির্বাচনী প্রপারনা শুরু

 

মোঃ আমিনুল ইসলাম,ঝালকাঠি সংবাদদাতা : আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঝালকাঠি-১ (রাজাপুর-কাঁঠালিয়া) আসন থেকে জনপ্রিয়তার শীর্ষে রয়েছেন গণ-মানুষের নেতা শিক্ষাবিদ অধ্যক্ষ মুহাম্মদ ফয়জুল হক। এই কোরবানীর ঈদে নিজ নির্বাচনী এলাকা ঝালকাঠি-১ (রাজাপুর-কাঁঠালিয়া) আসনে ব্যাপক গণ-সংযোগের কাজ করছেন মালয়েশিয়ায় পিএইচডি গবেষণারত ও প্রিন্সিপ্যাল হিসেবে কর্মরত অধ্যক্ষ মুহাম্মদ ফয়জুল হক।

বিখ্যাত ইসলাম ধর্ম প্রচারক মাওলানা আজিজুর রহমান নেসারাবাদী (কায়েদ সাহেব হুজুরের) দৌহিত্র ফয়জুল হক। পারিবারিক ঐতিহ্যগতভাবেই বহু আগে থেকে সামাজিক উন্নয়ন কর্মকান্ডে জড়িত। তিনি বিভিন্ন ধরনের সামাজিক কর্মসূচির মাধ্যমে নিজ উপজেলা ছাড়াও কাঁঠালিয়াবাসীর মধ্যে ইতোমধ্যে ব্যাপক জনপ্রিয় হয়ে উঠেছেন।

শিক্ষার্থীদের পড়াশুনায় উৎসাহ প্রদানে চষে বেড়িয়েছেন রাজাপুর-কাঁঠালিয়ার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো। এছাড়া তিনি স্কুল, কলেজ ও মাদরাাসাসহ নানান ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নে সহযোগিতা করছেন নিয়মিত। রাজাপুর ও কাঁঠালিয়ার বিভিন্ন এলাকায় এমএম হক ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে সুপেয় পানির জন্য টিউবওয়েল স্থাপন, মসজিদ, মাদরাসা ও মন্দিরের উন্নয়নে অর্থ প্রদান করে আসছেন।

এছাড়া তিনি দুই ঈদে স্থানীয় গরিব-দুঃখী মানুষের পাশে থেকে খোঁজ খবর নেওয়াসহ অর্থ সহযোগিতা করে থাকেন।

ভদ্র ও দানশীল বলে পরিচিত ফয়জুল হক আগামি সংসদ নির্বাচনের জন্য স্থানীয়ভাবে রয়েছেন আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে। বয়সে তরুণ, কাজে-কর্মে অদম্য স্প্রিহা থাকা এই নেতার ব্যক্তি হিসেবেও স্বচ্ছ ভাবমূর্তি রয়েছে জনগণের কাছে।

এলাকাবাসীর দাবি, সুখে-দুঃখে আমরা আমাদের পাশে সন্মানিত কায়েদ সাহেব হুজুরের এই দৌহিত্রকে দেখতে চাই। যিনি পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর কথা সংসদে বলবেন। কাজ করবেন জনগণের কল্যাণে ও এলাকার সার্বিক উন্নয়নে।

তার এহেন কর্মকান্ডে রাজাপুর ও কাঁঠালিয়াবাসী খুশি হয়ে আগামীতে যেকোন দল কিংবা স্বতন্ত্র হিসেবে হলেও ঝালকাঠি-১ (রাজাপুর-কাঁঠালিয়া) আসনের এমপি হিসেবে জাতীয় সংসদে দেখতে চান।

এলাকাবাসীর মধ্যে জোর আলোচনা চলছে তিনি এমপি হিসেবে প্রার্থী হলে পাশ করেই যাবেন। তবে কেউ কেউ ভাবছেন তিনি ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের টিকেটে প্রার্থী হবেন। আবার কেউ কেউ ভাবছেন তিনি দীর্ঘদিন ক্ষমতার বাইরে থাকা বিএনপি’র টিকেটে নির্বাচনে অংশ নিবেন। আবার এসবকে উড়িয়ে দিয়ে আলোচনায় আসছে তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নিবেন।

তবে যে যাই ভাবছেন না কেন- সকলের শেষ একটাই কথা তিনি নির্বাচনে যেভাবেই প্রার্থী হন না কেন রাজাপুর ও কাঁঠালিয়ার মানুষ দল-মত, জাতি-ধর্ম-বর্ণ ভুলে গিয়ে তাকে বিপুল ভোটে নির্বাচিত করবে।

 

 

 

 

 

কিউএনবি/রেশমা/৫ই সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং/ সকাল ৮:২৬