২৪শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ৯ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ৪:০১

পদ্মার পানি বিপদসীমার ১০৬ সে.মি. ওপর

 

ডেস্কনিউজঃ গত কয়েক দিনে ধারাবাহিকভাবে নদ-নদীর পানি বৃদ্ধির ফলে ফরিদপুরের তিনটি উপজেলায় লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। শুক্রবার পদ্মার পানি বিপদসীমার ১০৬ সে.মিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ইতিমধ্যেই ৪৯টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও উচ্চ বিদ্যালয় সাময়িক বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। স্কুল বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীরা পড়েছে বিপাকে।

পদ্মার পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় ফরিদপুর সদর, চরভদ্রাসন ও সদরপুর উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নের ১৬৬টি গ্রামের ২০ হাজার ৬০০ পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। এছাড়া ওই সকল এলাকায় দেখা দিয়েছে নদী ভাঙন। পানিতে তলিয়ে গেলে ১০২টি কাঁচা ও পাকা সড়ক।

পানিতে নিমজ্জিত হওয়ায় ফরিদপুর সদরের ১০ টি, চরভদ্রাসনে ১৭ এবং সদরপুরে ২২টিসহ মোট ৪৯ টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও উচ্চ বিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। বছরের এই সময়ে পানি বৃদ্ধির কারনে স্কুল বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীরা পড়েছে বিপাকে।

এদিকে জেলার তিনটি উপজেলায় পানিবন্দি ও নদী ভাঙন কবলিতদের মাঝে সরকারি সহায়তা হিসেবে ৯০ মে.টন চাল ও ২লক্ষ ৯০ হাজার টাকা নগদ দেয়া হয়েছে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে।

অপরদিকে ফরিদপুরে পানি বৃদ্ধির ফলে তিনটি উপজেলায় ১৭১ হেক্টর ধান ও ৫৮ হেক্টর সবজিসহ মোট ২২৯ হেক্টর জমির ফসল পানিতে নিমজ্জিত হয়েছে।

এছাড়া শুক্রবার সকালে একই সময়ে ফরিদপুর সদর উপজেলার চরাঞ্চলের পানিবন্দি তিনটি ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকা পরিদর্শন করেন সদর ইউএনও প্রভাংশু সোম মহান।

এদিকে গোয়ালন্দ পয়েন্টে পদ্মা নদীর পানি গত ৪৮ ঘন্টায় ১৪ সে.মি বৃদ্ধি পেয়ে বিপৎসীমার ১০৬ সে.মি উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

এদিকে ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক উম্মে সালমা তানজিয়া জানান, ‘জেলায় তিনটি উপজেলার ৪৯টি স্কুল বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে, আমাদের সকল ধরনের প্রস্তুতি রয়েছে’।

 

কিউএনবি/বিপুল/১৯ই আগস্ট, ২০১৭ ইং/সকাল ১১:৫৮