২১শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ৬ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সকাল ৬:৩২

গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীর ১৪ ইউনিয়নে আ’লীগ ১০, স্বতন্ত্র ২, স্থগিত ২

গোপালগঞ্জ থেকে এম শিমুল খান: কেন্দ্র স্থগিত, পুলিশের গুলি ও লাঠিচার্জ, কেন্দ্র ভাংচুর ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার মধ্য দিয়ে গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নে নির্বাচন শেষ হয়েছে।

১৪টি ইউনিয়নের মধ্যে স্থগিত-২ ,স্বতন্ত্র-২ ও নৌকায় ১০ চেয়ারম্যান নির্বাচিত। নির্বাচন চলাকালে বেলা ১১টার দিকে গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজেলার হাতিয়াড়া ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডে গীতাঞ্জালী যুব সংঘ কেন্দ্রে দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ, ভোট কেন্দ্র ভাংচুরের ঘটনা ঘটে। এ সময় দুই মেম্বার প্রার্থীসহ ৫ জন আহত হয়েছে। ওই কেন্দ্রে আওয়ামীলীগ প্রার্থীর সমর্থকরা টেবিলে ভোট নিতে চাইলে স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থকরা বাধা দেয়। এ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষে ঘটনা ঘটে। ফলে দেড় ঘন্টা ভোট গ্রহন বন্ধ ছিল।

দুপুর পৌনে ১২টার দিকে বেথুড়ী ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডে রামদিয়া উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে আওয়ামীলীগ প্রার্থীর সমর্থকেরা কেন্দ্র দখল করতে গেলে স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থকদের সাথে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। পরে  পুলিশ ও বিজিবি গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। এ সময় ওই কেন্দ্রে ৪০ মিনিট ভোট গ্রহন বন্ধ ছিল। পরে নির্বাচন কমিশন থেকে ওই কেন্দ্রটি স্থগিত ঘোষনা করা হয়।

অপর দিকে বিকাল পৌনে ৩টার দিকে কাশিয়ানী ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডে দুই মেম্বার প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। পুলিশ ৩ রাউন্ড রাবার বুলেট নিক্ষেপ ও লাঠিচার্জ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। এ কেন্দ্রটিতে প্রায় ১৫ মিনিট ভোটার উপস্থিত ছিল না। পরে আবার ভোট গ্রহন শুরু হয়। হাতিয়াড়া ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডে গীতাঞ্জলী যুব সংঘ কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার সত্যেন্দ্রনাথ রায় ও বেথুড়ি ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের রামদিয়া উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার এস এম ফজলুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

এদিকে, মহেশপুর ইউনিয়নের স্বতন্ত্র নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান কাজী আবুল কালাম আজাদ ও ওড়াকান্দি ইউনিয়নের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান বদরুল আলম বিটুল,  উভয়ই বলেন আমরা নৌকা মার্কার লোক জনগন আমাদের ভালবেসে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেছে।

গোপালগঞ্জ জেলার কাশিয়ানী উপজেলার ১৪ ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে বেসরকারি ভাবে ১০টিতে আওয়ামী লীগ ও দু’টিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। এছাড়া দু’টি কেন্দ্রে ভোট স্থগিত রয়েছে। শনিবার সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণের পর গণনা শেষে বেসরকারি ভাবে এ ফলাফল জানায় নির্বাচন কমিশন কর্তৃপক্ষ।

আওয়ামীলীগ মনোনীত চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিতরা হলেন, নিজামকান্দি ইউনিয়নের মহব্বত হোসেন মোল্যা (আ’লীগ), ফুকরা ইউনিয়নের ইমদাদুল হক মোল্যা (আ’লীগ), পুইশুর ইউনিয়নের মোল্যা আলিউজ্জামান (আ’লীগ), রাতইল ইউনিয়নের বি এম হারুন অর রশিদ পিনু (আ’লীগ), হাতিয়াড়া ইউনিয়নের দেব দুলাল বিশ্বাস (আ’লীগ), মাহমুদপুর ইউনিয়নের মাসুদ রানা (আ’লীগ), পারুলিয়া ইউনিয়নের মকিমুল ইসলাম (আ’লীগ), সিংগা ইউনিয়নের প্রণব সরকার (আ’লীগ), কাশিয়ানী ইউনিয়নের মো: মশিউর রহমান (আ’লীগ) ও সাজাইল ইউনিয়নের কাজী জাহাঙ্গীর আলম (আ’লীগ)।

স্বতন্ত্র হিসেবে বিজয়ীরা হলেন, ওড়াকান্দি ইউনিয়নের বদরুল আলম ও মহেশপুর ইউনিয়নের কাজী আবুল কালাম আজাদ।

এদিকে রাজপাট ইউনিয়নের ৬ নম্বর ওয়ার্ডের রাজপাট কলেজ কেন্দ্রের নির্বাচন স্থগিত হওয়ায় ওই ইউনিয়নের ফলাফল ঘোষণা করা হয়নি। এছাড়া বেথুড়ী ইউনিয়নের এক নম্বর ওয়ার্ডের রামদিয়া উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রের নির্বাচন স্থগিত ঘোষণা করায় ওই ইউনিয়নের ফলাফলও ঘোষণা করা হয়নি।

কুইক নিউজ বিডি.কম/এএম/২৪.০৪.২০১৬/১৭:৪৫