২০শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ৫ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | দুপুর ১:০৫

ঝিনাইদহের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের গরম হাওয়া

ঝিনাইদহ থেকে থেকে জাহিদুর রহমান তারিক: ঝিনাইদহের কালীগঞ্জের ১১ টি ইউনিয়ন পরিষদের মধ্যে ৯টিতে নির্বাচন হচ্ছে। আগামী ২৩ এপ্রিল অনুষ্ঠিতব্য ৩য় ধাপের ইউপি নির্বাচনে বুধবার মনোয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিনে ৭ জন ইউপি চেয়াম্যান প্রার্থী তাদের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নিয়েছেন। এখন ৯টি ইউপিতে ২৪ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন বলে নির্বাচন অফিস সূত্রে জানাগেছে।

বুধবার মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহারের শেষ দিনে ৭ চেয়ারম্যান প্রার্থী তাদের প্রার্থীতা প্রত্যাহার করেছেন। এছাড়া সীমানা সংক্রান্ত জটিলতায় ৫ নং সিমলা রোকনপুর ও ৭ নং রায়গ্রাম ইউনিয়নে নির্বাচন হচ্ছে না। ৯টি  ইউনিয়নের ২নং জামাল ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী মোদাচ্ছের হোসেনের কোন প্রতিদ্বন্দ্বি না থাকায় তিনি বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বে-সরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। এবারের নির্বাচনে কোন ইউনিয়নে জামায়াত সমর্থিত প্রার্থী নেই।

উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, ১ নং সুন্দরপুর দূর্গাপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী ওহিদুল রহমান ওদু, বিএনপির মনোনীত প্রার্থী ইলিয়াস রহমান মিঠু ও স্বতন্ত্র প্রার্থী লিয়াকত আলী খান (লিটন) (আ’লীগ বিদ্রোহী) প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এ ইউনিয়নে মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহার করে নেন জামায়াত সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থী মাওলানা আলিনুর রহমান ও স্বতন্ত্র প্রার্থী শওকত আলী।

২ নং জামাল ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী মোদাচ্ছের হোসেনের কোন প্রতিদ্বন্দ্বি না থাকায় তিনি বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

৩ নং কোলা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী আয়ূব হোসেন, বিএনপির মনোনীত প্রার্থী গোলাম ছরোয়ার প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন । স্বতন্ত্র প্রার্থী রিংকু ঘোষ তার মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহার করেছেন।

৪ নং নিয়ামতপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী রাজু আহম্মেদ (রনি লস্কর), বিএনপির মনোনীত প্রার্থী মাহাবুবুর রহমান মিলন, স্বতন্ত্র প্রার্থী সাজেদুল হক লিটন ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ মনোনীত প্রার্থী শাহজাহান আলী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। স্বতন্ত্র প্রার্থী হাফিজুর রহমান তার মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহার করেছেন।

৬ নং ত্রিলোচনপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী নজরুল ইসলাম সানা ও বিএনপির মনোনীত প্রার্থী শাহজাহান আলী শেখ প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

৮ নং মালিয়াট ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী আজিজুর রহমান খান, বিএনপির মনোনীত প্রার্থী আব্দুল মজিদ শেখ, স্বতন্ত্র প্রার্থী গোলাম মোস্তফা শুকুর, স্বতন্ত্র প্রার্থী ইকরামুল হক (বিএনপি বিদ্রোহী) ও শাহিনুর রহমান (আ’লীগ বিদ্রোহী) প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।
৯ নং বারোবাজার ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আবুল কালাম আজাদ ও স্বতন্ত্র প্রার্থী এমদাদুল হক (আ’লীগ বিদ্রোহী) প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এ ইউনিয়নে বিএনপির মনোনীত প্রার্থী আবুল কালাম আজাদ ও স্বতন্ত্র প্রার্থী আজাদ ইকবাল শিপন তাদের প্রার্থীতা প্রত্যাহার করেছেন।

১০ নং কাষ্টভাঙ্গা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী আয়ূব হোসেন, বিএনপির মনোনীত প্রার্থী আবু জাফর ও স্বতন্ত্র প্রার্থী তরিকুল ইসলাম প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

১১ নং রাখালগাছি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী মহিদুল ইসলাম, বিএনপির মনোনীত প্রার্থী ইসমাইল হোসেন ও স্বতন্ত্র প্রার্থী আলতাফ হোসেন (আ’লীগ বিদ্রোহী) প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। জাতীয় পার্টির মনোনীত প্রার্থী ইদ্রিস আলী তার প্রার্থীতা প্রত্যাহার করেছেন। কালীগঞ্জ উপজেলা নির্বাচন অফিসার জাহাঙ্গীর আলম রাকিব জানান, সীমানা সংক্রান্ত জটিলতায় ৫ নং সিমলা রোকনপুর ও ৭ নং রায়গ্রাম ইউনিয়নে নির্বাচন হচ্ছে না। বাকি ইউনিয়নগুলোতে ২৩ এপ্রিল শনিবার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।
এদিকে বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলা নির্বাচন অফিসার জাহাঙ্গীর আলম প্রতিক বরাদ্ধ দেন। এ উপজেলার ৯ টি ইউনিয়নে আগামী ২৩ এপ্রিল তৃতীয় ধাপে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে।

৯ টি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ২৬ জন, মেম্বর পদে ২৯২ জন ও সংরক্ষিত মহিলা মেম্বর পদে ৭৬ জন প্রতিদ্বন্দীতা করছেন।

কুইক নিউজ বিডি.কম/এএম/০৭.০৪.২০১৬/২০:৩৩