২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ১০ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | রাত ৩:২৫

কবির জমাদ্দারের ধর্ষন মামলা তদন্তে ঝালকাঠির এএসপি সার্কেল

ঝালকাঠি সংবাদদাতা: নলছিটির নারীখেকো বিএনপি নেতা কবির জমাদ্দারের বিরুদ্ধে গৃহকর্মী নবম শ্রেণির ছাত্রী ধর্ষন মামলার সরেজমিন তদন্ত শুরু করেছে ঝালকাঠির সহকারী পুলিশ সুপার সার্কেল এমএম মাহমুদ হাসান ও তদন্ত কর্মকর্তা এসআই আ. রহিম।

বৃহস্পতিবার বিকাল ৩টায় সুবিদপুর ইউনিয়নের পূর্ব গোদন্ডা গ্রামে এ তদন্তকালে ধর্ষিতা (১৪), তার পিতা সহ স্থানীয় অর্ধশত নারী-পুরুষ ল্যম্পট বিএনপি নেতা কবির জমাদ্দারের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য প্রদান সহ পূর্বের অসংখ্য নারী নির্যাতন ও কুকীর্তি তুলে ধরেন। এসময় তাদের আশ্বস্থ করে এএসপি সার্কেল এমএম মাহমুদ হাসান বলেন, অপরাধী যতো অর্থ-বৃত্তের মালিক হোক আইনের কাছে সে নগন্ন। তাই পুলিশের তদন্তে অপরাধের প্রমান পেলে সে রেহাই পাবেনা।

জানাগেছে, গত বছর তালতলা ইলেন ভূট্টো বালিকা বিদ্যালয় থেকে জেএসসি পাশ করে বর্তমানে ৯ম শ্রেণিতে  পড়–য়া ছাত্রীকে গৃহকর্মী হিসাবে কাজে নিয়ে কবির জমাদ্দার পিস্তলের ঠেকিয়ে ধর্ষণ করে এবং এ ঘটনা কাউকে জানালে তাকে সহ তার বাবা-মাকেও গুলি করে হত্যার হুমকি দেয়ায়। এভাবে কয়েক মাস ধরে ধর্ষণের ফলে সে গর্ভবতী হয়ে পড়লে দু’মাস পূর্বে বরিশালের ডাক্তার খালেদা পারভিনের কাছে নিয়ে গর্ভপাত ঘটায়।

এ ঘটনায় নলছিটি থানায় মামলা দায়েরের জন্য ধর্ষিতা স্কুলছাত্রীর পরিবার মামলা দায়ের করতে গেলে ধর্ষক কবির জমাদ্দার বিপুল অংকের অর্থ ঘটনা ধামাচাপা দিতে মামলার প্রথম তদন্ত কর্মকর্তা এসআই আবুল কালাম কালামকে দিয়ে একটি মিথ্যা চুরী মামলা দায়ের করায়। এরপরে বিতর্কিত এসআই কালাম তার গ্রামের বাড়ী পটুয়াখালীতে বিল্ডিং নির্মানের জন্য নলছিটি আসামীর ব্রিকফিল্ড থেকে বিপুল সংখ্যক ইট নিয়ে নাবালিকা ধর্ষিতাকে পুলিশী রিমান্ডের আবেদন সহ নানা বিতর্কিত কর্মকান্ড করতে থাকে।

এক পর্যায় ধর্ষিতা ও তার পরিবার ঝালকাঠি নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে আদালতের আশ্রয় নিলে আদালতের নির্দেশে গত ২৮ ফেব্রুয়ারী নলছিটি থানায় কবির জমাদ্দারের বিরুদ্ধে এজাহার রেকর্ড করা হয়। এঅবস্থায় এসআই কালাম ধর্ষক কবির জমাদ্দারের স্থানীয় সহযোগীদের নিয়ে ধর্ষিতা স্কুলছাত্রী ও তার পরিবারকে নানা ভাবে হয়রানি ও ভয়ভীতি প্রদর্শন করতে শুরু করে। নিরুপায় হয়ে ধর্ষিতা পরিবারটি পুলিশ সুপার সুভাস চন্দ্র সাহার স্মরনাপন্ন হলে তিনি এসআই কালাম কে অন্যত্র বদলী করে ও এএসপি সার্কেল মাহমুদ কে বিষয়টি তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা গ্রহনের নির্দেশ দেন।

এ ব্যাপারে এএসপি সার্কেল এমএম মাহমুদ হাসান জানায়, তিনি মামলাটি সার্বিক তদন্ত ও সরেজমিন তদন্ত শুরু করেছেন। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করতে পুলিশ বদ্ধপরিকর দাবী করে তিনি অচিরেই আসামী গ্রেপ্তার ও নির্যাতিতের পররিবারটি আইনগত সহযোগীতা পাবে বলে জানান।

কুইক নিউজ বিডি.কম/এএম/০৭.০৪.২০১৬/১৯:৪২