১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ভোর ৫:৩১

খাগড়াছড়ি সদরে চলচ্চিত্র প্রদর্শনী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত

খাগড়াছড়ি থেকে চাইথোয়াই মারমা: সরকারের সাফল্য, অর্জন ও উন্নয়ন ভাবনা বিশেষ প্রচারাভিযান উপলক্ষে ভিশন-২০২১খ্রি:’র খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলায় আলোচনা সভা, উদ্ধুদ্ধকরণ সংগীতানুষ্ঠান ও চলচ্চিত্র প্রদর্শনী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বুধবার সকাল ১১টায় সদর উপজেলা মিলনায়তনে গনযোগাযোগ অধিদপ্তরের অধীন খাগড়াছড়ি জেলা তথ্য অফিস এ আয়োজন করে। খাগড়াছড়ি সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: তাজুল ইসলাম সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সদর উপজেলা চেয়ারম্যান চ্ঞুমনি চাকমা। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সদর উপজেলা ভাইস-চেযারম্যান রনিক ত্রিপুরা, মহিলা ভাইস-চেযারম্যান বিউটি রানী ত্রিপুরা, জেলা তথ্য অফিসার মিলন চাকমা, প্রেস ক্লাবের সভাপতি জীতেন বড়ুয়া, সহকারী কমিশনার(ভূমি) সামসুল ইসলাম।

সরকার সাফল্যে বিষয়ে বিভিন্ন দিক তুলে ধরে আলোচনা সভায় উন্মুক্ত বক্তব্য রাখেন উপজেলা যুব বিষয়ক কর্মকর্তা স্লিগধা চাকমা, সদর রেন্জ কর্মকর্তা গোলাম রাব্বি, উপজেলা আনসার-ভিডিপি কর্মকর্তা রোকেয়া পারভিন, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো: ইসমাইল, উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা অমর বিকাশ চাকমা, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রিয়াজুল আহম্মেদ, উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা: টুটুল চাকমা, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরে উপ-সহকারী প্রকৌশলী প্রদীপ কুমার বড়–য়া, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো: আব্দুল লতিফ, উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক হেম চন্দ্র চাকমা, একটি বাড়ি-একটি খামার প্রকল্পের সম্মনয়ক সমপন দেওয়ান, উপজেলা পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা মো: জাকারিয়া, উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা শরৎ কুমার চাকমা, উপজেলা প্রানী সম্পদ কর্মকতাৃ মো: রফিকুল ইসলাম, উপজেলা তুলা উন্নয়ন কর্মকর্তা মো: সাখাওয়াত হোসেন।

এসময় বিভিন্ন সরকারী-বেসরকারী প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা, প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া সংবাদকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন ।

বক্তারা বলেন যে জাতির উন্নয়নের জন্য একটি ভিশন থাকতে হয়, জাতির পিতা বংগব›দ্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও ক্ষুধা দারিদ্র, শোষণ ও বৈষম্যমুক্ত একটি সোনার বাংলার ন্বপ্ন দেখেছিলেন। সেই পথ ধরে তার কন্যা সফল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার বিগত মেয়াদে নির্বাচনী এস্তেহারে মানুষের দিনবদল ও ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার একটি অনন্য ভিশন প্রদান করেন। আর সে ভিশন হচ্ছে- গৌরবময় স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীর বছর ২০২১ বা রপকল্প-২০২১। ২০২১সালে আমাদের প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশের স্বাধীনতা লাভের ৫০বছর পূর্ণ হবে। সরকার ৫০বছর বা সুবর্ণজয়ন্তী উৎসব উদযাপন করবে অত্যন্ত ঝাকজমকভাবে। আর এ সুবর্ণ জয়ন্তীকে সামনে একটি সুখী, সুন্দর ও দারিদ্রমুক্ত একটি সোনার বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন নিয়ে তৈরী করা হয়েছে-ভিশন: ২০২১ বা রপকল্প-২০২১। এ লক্ষ্যে সরকার রপকল্প-২০২১এর লক্ষ্যসমূহ বাস্তবায়ন করে আগামী ২০২১সালের মধ্যে বাংলাদেশকে একটি মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত করে, বাংলাদেশকে ডিজিটাল বাংলাদেশ হিসেবে গড়ে তুলতে বিভিন্ন কর্মসূচী বাস্তবায়ন করছে। দেশবাসীর প্রত্যাশা অনুযায়ী একটি সুখী সমৃদ্ধ এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উজ্জীবিত বর্তমান সরকার ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে বিগত মেয়াদে এবং বর্তমান মেয়াদে সরকার বিভিন্ন সেক্টরে উল্লেখযোগ্য সাফল্য অর্জন করেছে। তার মধ্যে শিক্ষা, স্বাস্থ্য, কৃষি ও খাদ্য, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তিতে অসাম্য সাফল্য অর্জন করেছে বাংলাদেশ।

কুইক নিউজ বিডি.কম/এএম/০৬.০৪.২০১৬/২১:৫৫