ব্রেকিং নিউজ
৫ই ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | রাত ১০:৪৭

মানবাধিকার সংস্থার চেয়ারম্যান পরিচয়ে প্রতারণা করতেন তিনি

 

ডেস্কনিউজঃ যিনি একাধারে নিজেকে হোমল্যান্ড সিকিউরিটি অ্যান্ড গার্ড সার্ভিসেস লি: এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক, বাংলাদেশ আউট সোর্সিং এন্ড পাওয়ার সাপ্লাইয়ার্স এসোসিয়েশনের সভাপতি, মানবাধিকার সংস্থার চেয়ারম্যানসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি হিসেবে নিজেকে পরিচয় দিয়ে দীর্ঘদিন ধরে প্রতারণা করে আসছিলেন শাহিরুল ইসলাম সিকদার।

সম্প্রতি প্রতারণার শিকার বেশ কয়েকজন ভুক্তভোগী শাহিরুল ইসলাম সিকদার (৪৮) এর বিরুদ্ধে র‌্যাব-৪ এ প্রতারণার অভিযোগ করলে শনিবার (২৩ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ৮টায় রাজধানীর বনশ্রী এলাকায় তার নিজ বাসা থেকে বিপুল পরিমাণ দেশি-বিদেশি অস্ত্রসহ তাকে গ্রেফতার করে র‌্যাব-৪।

গ্রেফতারের পর শনিবার ( ২৩ অক্টোবর) বিকেলে রাজধানীর কাওরান বাজারস্থ র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে র‍্যাব-৪ এর অধিনায়ক মোজাম্মেল হক এসব তথ্য জানান।

তিনি বলেন, চাকরি দেওয়ার নামে অর্থ আত্মসাৎ এর ঘটনা পুরাতন হলেও মানবাধিকার সংস্থার চেয়ারম্যান হিসেবে পরিচয় প্রদানকারী শাহিরুলের প্রতারণার ইতিহাস নিঃসন্দেহে ধৃষ্টতাপূর্ণ এবং ভিন্নধর্মী। শাহীরুল একজন শীর্ষ পর্যায়ের প্রতারক। হোমল্যান্ড সিকিউরিটি অ্যান্ড গার্ড সার্ভিস লি: কোম্পানি খুলে, ক্ষমতাধর ব্যক্তি হিসেবে নিজেকে উপস্থাপন ও চাকরি দেওয়ার নামে প্রতারণা এবং বিত্ত বৈভবের মালিক শাহীরুল ছিল সকলের ধরা ছোঁয়ার বাইরে।

প্রতারক শাহিরুলের উত্থান:

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ছেলে শাহীরুল কর্মজীবন শুরু করে গাড়ি ব্যবসা দিয়ে। এরপর শুরু করে প্রতারণা। ২০০৩ সালে সিকিউরিটি গার্ড সরবরাহ শুরু করে। এরপর হোমল্যান্ড সিকিউরিটি সার্ভিস লি: নামে প্রতিষ্ঠান করে।

হোমল্যান্ড সিকিউরিটি সার্ভিস লি: এর পরিবর্তে নিজেকে প্রভাবশালী হিসেবে প্রতিষ্ঠার উদ্দেশ্যে একটি বেনামী মানবাধিকার সংস্থার চেয়ারম্যান হিসেবে পরিচয় দিয়ে থাকে। ক্ষমতা প্রদর্শনের উদ্দেশ্যে সে নামীদামী ব্যক্তিবর্গের সাথে ছবি তুলে সেগুলো প্রদর্শন করে প্রতারণা করতো।

প্রতারণার কৌশল:

প্রতারক শাহীরুল বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে সিকিউরিটি গার্ড নিয়োগ দেওয়ার কথা বলে চটকদার বিজ্ঞাপন দিতো। দেশের শিক্ষিত বেকার তরুণ-তরুণীরা বিজ্ঞাপনে আকৃষ্ট হয়ে আবেদন করলে তাদের কাছ থেকে ১৫-২৫ হাজার টাকা জামানত। একই সঙ্গে সরকারি চাকরি দেওয়ার কথা বলে অনেকের কাছ থেকে ৫-১০ লাখ টাকা নিতো। এভাবে অনেকের কাছ থেকে টাকা নিয়ে তা আত্মসাৎ করতো শাহীরুল। দীর্ঘদিন তার অফিস/বাসায় ঘুরাঘুরির পরও চাকুরীতে নিয়োগ না পাওয়ার পর পাওনা টাকা ফেরত চাইলে তার কাছে থাকা অবৈধ অস্ত্র দিয়ে ভুক্তভোগীদের বিভিন্ন ভয়ভীতিসহ জীবননাশের হুমকি প্রদান করতো বলে জানায় র‌্যাব।

গ্রেফতারকৃত শাহিরুল নিজেকে একজন সরকারি কর্মকর্তা হিসেবে ভুয়া পরিচয় প্রদান ও চাঁদাবাজি করার অপরাধে তার নামে ডিএমপির রামপুরা থানায় চাঁদাবাজি ও প্রতারণার মামলা রয়েছে।

কিউএনবি/বিপুল/২৩শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ| সন্ধ্যা ৭:৩৪

↓↓↓ফেসবুক শেয়ার করুন