২৬শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১২ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | সকাল ৮:১৬

২০ বছর পরও অক্ষত কাফনের কাপড় ও মৃতদেহ

 

ডেস্ক নিউজ : মোঃ মুজাফফর আলী হাওলাদার (৭৫) নামে এক বৃদ্ধ সেই ২০০০ সালে মৃত্যুবরণ করেন। দীর্ঘ ২০ বছর পর নদী ভাঙনে আশেপাশের এলাকা বিলীন হয়ে গেলেও মৃত মোঃ মুজাফফর আলীর কবরটি ঠায় দাঁড়িয়ে থাকে পানির মধ্যেই। এ অবস্থায় মৃতের স্বজনরা লাশ স্থানান্তরের জন্য কবরটি খনন করলে কাফনের কাপড় ও দেহ অক্ষত অবস্থায় উদ্ধার করে। এতে এলাকাজুড়ে ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি হয়।

মঙ্গলবার (১ সেপ্টেম্বর) সকালে খবরটি ছড়িয়ে পড়লে অলৌকিক এ ঘটনায় লাশটি এক পলক দেখার জন্য দিনভর এলাকাবাসীসহ শহর থেকে হাজারো মানুষের ঢল নামে ঝালকাঠি সদর উপজেলার গাবখান ধানসিঁড়ি ইউনিয়নের চরকাঠি গ্রামে।

স্থানীয় ও স্বজনরা জানান, ঝালকাঠি সদর উপজেলার চরকাঠি গ্রামের বাসিন্দা মোঃ মুজাফফর আলী হাওলাদার নামে এক ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী বিগত ২০০০ সালে বার্ধক্য জনিত কারণে ৭৫ বছর বয়সে মারা যান। মৃত্যুর পর পরিবারের সদস্যরা তাকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করলেও নদী ভাঙনের কারণে পরিবারের সদস্যরা বৈদারাপুর গ্রামে নতুন বসত বাড়ী স্থাপন করে বসবাস শুরু করে। সুগন্ধা-বীষখালী নদীর মোহনায় চরকাঠি গ্রামটি নদী ভাঙনে ক্রমেই নদীগর্ভে বিলিন হতে থাকে।

গত কয়েক দিনে এ কবরের আশেপাশের এলাকা নদী গর্ভে বিলীন হলেও মৃত মুজাফফর আলী হাওলাদারের কবরটি অক্ষত অবস্থায় পানির মধ্যে দাঁড়িয়ে থাকায় মঙ্গলবার সকালে স্বজনরা তার কবরটি স্থানান্তরের উদ্যোগ নেয়। এ সময় মুজাফফর আলী হাওলাদারের কবর খুঁড়ে তার মৃত দেহসহ দাফনের কাপড় পর্যন্ত অক্ষত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। পরে স্বজনরা তার অক্ষত মৃতদেহ উদ্ধার করে বাড়িতে নিয়ে আসলে এ সংবাদ চারিদিকে ছড়িয়ে পড়ে। শুধুমাত্র মরদেহটি কিছুটা শুকিয়ে গেলেও কোন প্রকার পচন ধরেনি বা কোন দুর্গন্ধও বের হয়নি।

এ খবর মুহূর্তের মধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে ওই বাড়িতে লোকজন ভীড় জমায় এবং এক নজর দেখার জন্য দূরদূরান্ত থেকে ওই বাড়িতে লোকজনের ঢল নামে। পরে আজ মঙ্গলবার আসরবাদ পুনঃরায় নামাজে জানাজা শেষে পারিবারিক নতুন কবরস্থানে ধর্মীয় রীতি অনুযায়ী লাশের দাফন করা হয়।

কিউএনবি/রেশমা/২রা সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং/সকাল ১০:১৮

↓↓↓ফেসবুক শেয়ার করুন