২৬শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১২ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | সকাল ৮:৩৯

রেলস্টেশনটি এখন ভূতুরে বাড়ি

 

ডেস্ক নিউজ : হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার সীমান্তবর্তী সিলেট-ঢাকা রেল লাইনের সাটিয়াজুড়ী রেলস্টেশনটি বন্ধ রয়েছে। কালের আবর্তে এখানে আর ট্রেন থামে না। চারদিকে সুনসান নীরবতা। স্টেশনটি দেখে মনে হয় এ যেন একটি ভূতের বাড়ি। কিন্তু এক সময় আশপাশের শতাধিক গ্রামের মানুষ এ স্টেশন থেকে বিভিন্ন জায়গায় যাতায়াত করতেন। এই এলাকার একমাত্র যোগাযোগের মাধ্যম ছিল সাটিয়াজুড়ী রেল স্টেশন। সেই সুবাদে যাত্রীর পদভারে মুখর ছিল স্টেশনটি। দিনভর থাকত কর্মব্যস্ততা।

এখন স্টেশনটি বন্ধ থাকার ফলে এলাকার মানুষের জনদুর্ভোগ চরম আকার ধারন করেছে। এ ছাড়া নষ্ট হচ্ছে সরকারের লাখ লাখ টাকার সম্পদ। এলাকার লোকজন জানান, ব্রিটিশ আমলে এ রেলস্টেশনটি চালু হয়। সে সময় এ স্টেশনে একাধিক ট্রেন থামত। পরে ধীরে ধীরে এ স্টেশনে ট্রেনের সংখ্যা কমতে থাকে। বর্তমানে করোনাভাইরাসের কারণে লোকাল ট্রেনও থামছে না। এতে রেলস্টেশনটি একটি পরিত্যক্ত স্টেশনে পরিনত হয়েছে। এ ছাড়া এখানে ১২ বছর ধরে স্টেশন মাস্টার না থাকার ফলে অরক্ষিত হয়ে পড়েছে স্টেশনের সরকারি সম্পত্তি।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, রেলস্টেশন বলতে ব্রিটিশ আমলের সেই পাকা ভবনটি আছে। তাও আবার পশুপাখির আবাসস্থলে পরিনত হয়েছে। অফিস কক্ষের দরজা-জানালা গুলো ভেঙে পড়ছে। ভেতরে থাকালে দেখা যায় অনেক জিনিসপত্র ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে। নষ্ট হচ্ছে অনেক মূল্যবান জিনিস। সাটিয়াজুড়ী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুর রশিদ কালের কণ্ঠকে বলেন, এ রেল স্টেশনটি এক সময় খুবই জনপ্রিয় ছিল। ১৯৯৮-১৯৯৯ সালে সরকার স্টেশনটি বন্ধ ঘোষণা করলে এলাকার মানুষ অবরোধসহ নানা আন্দোলন করেও কোন কাজ হয়নি। আমি সরকারের কাছে এ রেল স্টেশনটি চালুর দাবি জানাচ্ছি। এলাকাবাসী বলেন, সাটিয়াজুড়ী রেল স্টেশনটি চালু করলে স্টেশনের প্রাণ চাঞ্চল্য আবার ফিরে পাবে।

 

 

কিউএনবি/আয়শা/২৩শে আগস্ট, ২০২০ ইং/বিকাল ৩:৪৫

↓↓↓ফেসবুক শেয়ার করুন